বেজায় একসঙ্গে শতাধিক সেবা

প্রকাশ: ২১ অক্টোবর ২০১৯      

মিরাজ শামস

বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরি ও ব্যবসা পরিচালনার ব্যয় কমাতে এক জায়গা থেকে ১০৭ সেবা দেবে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)। উদ্যোক্তারা সংস্থার ওয়ান স্টপ সেন্টার থেকে এসব সেবা পাবেন। 'অর্থনৈতিক অঞ্চলে ঝামেলা ছাড়াই ব্যবসা করার সুযোগ' স্লোগান সামনে রেখে এ কেন্দ্র চালু করতে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছে সংস্থাটি।

সহজে ব্যবসা পরিচালনায় বেজার ওয়ান স্টপ সার্ভিস (ওএসএস) কেন্দ্র থেকে এসব সেবা দিতে আজ সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে এ কার্যক্রম উদ্বোধন করা হবে। প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান সেবাকেন্দ্র উদ্বোধন করবেন।

বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী জানান, বাংলাদেশে বিশ্বমানের সেবা দেওয়ার অবকাঠামো তৈরি করতে কাজ করছেন তারা। সরকারও বিনিয়োগবান্ধব নীতি সহায়তা দিচ্ছে। এতে দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তারা কোনো ঝামেলা ছাড়া সহজে বিনিয়োগ করতে পারেন। এ ছাড়া অর্থনৈতিক অঞ্চলের বিনিয়োগকারীদের জন্য প্রতিযোগিতামূলক প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। বেজা কার্যালয়ে আন্তর্জাতিক মানের ওএসএস কেন্দ্র স্থাপন করে বেশকিছু সেবা চালু করা হয়েছে। তিনি জানান, অতিদ্রুত বাকি সেবা চালু করা হবে। এতে দেশি উদ্যোক্তাদের পাশাপাশি বিদেশিরাও উৎসাহিত হবেন।

সংশ্নিষ্টরা জানান, চলতি বছরের মধ্যে এ কেন্দ্র থেকে আরও সেবা দেওয়া হবে বিনিয়োগকারীদের। এ জন্য কাজ করছে বেজা। সংস্থাটি দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগ পরিকল্পনা দ্রুত বাস্তবায়নে এক ছাতার নিচে ২৭ ক্যাটাগরিতে সব সেবা নিশ্চিত করতে চায়। এ জন্য ১৪ বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও দপ্তরের সেবা এক স্থান থেকে দেওয়ার কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে সংস্থাটি। ইতোমধ্যে ১০৭ সেবা পাওয়া যাচ্ছে রাজধানীর পান্থপথে স্থাপিত সংস্থাটির ওএসএস কেন্দ্রে। এর মধ্যে অনলাইনে ১১ সেবা পাওয়া যাচ্ছে। এতে বিনিয়োগকারীরা প্রাথমিক অনুমোদনসহ বেশকিছু আনুষ্ঠানিকতা সারতে পারছেন। অফলাইনে আরও ৯৫ সেবা ওএসএস সেন্টার থেকে দেওয়া হচ্ছে। এ জন্য বিভিন্ন কার্যালয়ে যেতে হয় না বিনিয়োগকারীদের। শিগগির আরও ৩০ সেবা অনলাইনে দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে চায় বেজা। এ জন্য আজ সোমবার সোনারগাঁও হোটেলে কোম্পানি নিবন্ধকের কার্যালয় (আরজেএসসি), পরিবেশ অধিদপ্তর ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করবে সংস্থাটি।

বেজার ওএসএস কেন্দ্র স্থাপনে কারিগরি সহায়তা দিয়েছে জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা)। এটি চালুর ফলে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের যোগসূত্র তৈরি সহজ হবে। ব্যবসার পরিবেশ উন্নয়ন ও বিনিয়োগ আকর্ষণে এটি সহায়তা করবে। পাশাপাশি অর্থনৈতিক অঞ্চলের কার্যক্রম পরিচালনা করাও সহজ হবে। উৎপাদন খাতে কারিগরি সক্ষমতাও বাড়বে।

বর্তমানে যেসব সেবা মিলছে :বিনিয়োগকারীদের ভিসার সুপারিশপত্র, বিনিয়োগ ছাড়পত্র, কাজের অনুমতি, আমদানি ও রপ্তানি অনুমোদন, প্রকল্প অনুমোদন ও নিবন্ধন, স্থানীয় বিক্রয় ও ক্রয় অনুমতি, নমুনা আমদানি ও ট্রেড লাইসেন্স। শিগগির অনলাইনে আরও বেশ কয়েকটি সেবা বাড়ানো হবে। এগুলোর মধ্যে ভবনের নকশা অনুমোদন, ভবন ব্যবহারের অনুমতি, বাণিজ্যিক উৎপাদনে সনদ, কোম্পানির নামের অনুমোদন ও কোম্পানি নিবন্ধন পরীক্ষামূলক দেওয়া হচ্ছে। শিগগির টিআইএন ও ভ্যাট নিবন্ধন, পরিবেশগত সমীক্ষা অনুমোদন ও পরিবেশগত প্রত্যয়নপত্র দেওয়া হবে এ কেন্দ্র থেকে।

সংশ্নিষ্টরা জানান, সরকারের অন্যান্য সংস্থায় অনলাইনে সব সেবা চালু না হওয়ায় ওএসএস কেন্দ্র থেকে সব সেবা অনলাইনে দেওয়া যাচ্ছে না। তবে এ বিষয়ে বেজার প্রস্তুতি রয়েছে। আগামী বছরের জুনের মধ্যে সব সেবা অনলাইনে নিশ্চিত করার পরিকল্পনা রয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন সংস্থার সেবা নিতে সরকার নির্ধারিত ফি পরিশোধের জন্য সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে শিগগির এমওইউ সই করা হবে।

দেশ-বিদেশি উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগ টানতে বেজাসহ সরকারের চার সংস্থা কাজ করছে। বিডাও ওয়ান স্টপ সার্ভিস দিতে কার্যক্রম চালাচ্ছে। সেখানে অনলাইনে ২৫ সেবা দেওয়া হচ্ছে। আরও ১৫ সেবা বাড়ানোর বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ ছাড়া বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ পরীক্ষামূলকভাবে কয়েকটি সেবা দেওয়া শুরু করেছে। রফতানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষেরও (বেপজা) ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালুর বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।