অর্থবছরের প্রথম মাস

লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে সেবা রফতানি ২৫% কম

প্রকাশ: ০৪ অক্টোবর ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

পণ্য রফতানির মতো সেবা রফতানি গতিও কমে এসেছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে আগের বছরের একই মাসের তুলনায় সেবা রফতানি বেড়েছে ৪ শতাংশেরও কম। লক্ষ্যমাত্রা থেকে রফতানি কম হয়েছে ২৫ শতাংশ। রফতানি হয়েছে মাত্র ৫১ কোটি ডলার মূল্যের বিভিন্ন ধরনের সেবা। গত বছরের জুলাইয়ে রফতানির পরিমাণ ছিল ৫৩ কোটি ডলারেরও বেশি। রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) গতকাল বৃহম্পতিবার সেবা রফতানির এই তথ্য প্রকাশ করেছে। জুলাই- আগস্টের হিসাবে পণ্য রফতানি কমেছে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ১১ শতাংশ। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয় কম হয়েছে ২৬ শতাংশ।

ইপিবির তথ্য অনুযায়ী গত অর্থবছরে রফতানি হয়েছে ৬৩৪ কোটি ডলারের বিভিন্ন সেবা। এই ভালো ভিত্তির ওপর এ বছরের সেবা রফতানি লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮৫০ কোটি ডলার। জুলাইয়ে রফতানি লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭১ কোটি ডলার। লক্ষ্যমাত্রা থেকে রফতানি আয়ের ব্যবধান ২০ কোটি ডলারেরও বেশি। মূলত সেবা খাতের রফতানি আইটেম হিসেবে পরিবহন, টেলিযোগাযোগ ও নির্মাণ খাতের মতো বড় বড় খাতের রফতানি কমে যাওয়ার কারণেই মোট সেবা রফতানি আয় এত কম হয়েছে।

সেবা রফতানির বড় খাত হচ্ছে পরিবহন। সমুদ্রপথ, আকাশপথ, রেল ও সড়ক পরিবহন এ খাতের অন্তর্ভুক্ত। আলোচ্য সময়ে পরিবহনের সব পথেরই সেবা রফতানি কমেছে। চার পথ মিলে সেবা রফতানি গত বছরের জুলাই মাসের তুলনায় কম হয়েছে ১২ শতাংশ। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় কমেছে ২৩ শতাংশ। ৫ কোটি ডলারের কম মূল্যের সেবা রফতানি হয়েছে এই খাতে। গত অর্থবছরের জুলাই মাসে সেবা রফতানির পরিমাণ ছিল প্রায় ৬ কোটি ডলার। সেবায় দ্বিতীয় বড় খাত নির্মাণেও রফতানি কমেছে বেশি হারে। প্রায় ৩৫ শতাংশ কম হয়েছে রফতানি। লক্ষ্যমাত্রা থেকে রফতানি কম হয়েছে ৬০ শতাংশ। আয় হয়েছে তিন কোটি ডলারেরও কিছু কম। গত বছরের জুলাই মাসে এ খাতের রফতানি আয় ছিল পাঁচ কোটি ডলার। সেবার অপর বড় খাত টেলিযোগাযোগ ও তথ্যসেবা মিলিয়ে রফতানি কম হয়েছে ১৩ শতাংশ। রফতানি হয়েছে সাড়ে চার কোটি ডলারের সেবা। গত বছরের জুলাইয়ে এ খাতের রফতানির পরিমাণ ছিল ৫ কোটি ডলারেরও বেশি।

সেবার বড় খাতের মতো সম্ভাবনাময় খাত থেকেও ভালো সাড়া মেলেনি। এ রকম সম্ভাবনাময় খাত তথ্যসেবা রফতানি কমেছে ৫০ শতাংশ। মাত্র ৬ হাজার ডলারের তথ্যসেবা রফতানি হয়েছে। তবে পরিমাণে কম হলেও সংস্কৃতি ও বিনোদন রফতানি বেড়েছে ১৯২ শতাংশ। ১ কোটি ডলারের কিছু বেশি হয়েছে রফতানি আয়। গত বছরের জুলাই মাসে এই পরিমাণ ছিল প্রায় ৪০ লাখ ডলার। অন্যদিকে, ম্যানুফ্যাকচারিং সেবা রফতানিতে আয় বেড়েছে ৭২ শতাংশ। ভ্রমণ খাতে বেড়েছে ১২ শতাংশ।