কভিড-১৯ মহামারির কারণে বিশ্বজুড়ে অধিকাংশ ভোক্তা বাড়িতেই অবস্থান করেছিলেন। তাই নিত্যপ্রয়োজনীয় মুদিপণ্য থেকে শুরু করে বাগান করার জিনিসপত্র পর্যন্ত সবই তাদের কিনতে হয়েছে অনলাইন থেকে। মাস্টারকার্ডের সর্বশেষ 'রিকভারি ইনসাইটস'-এর রিপোর্ট থেকে জানা যায়, সারাবিশ্বে ২০২০ সালে অনলাইনে রিটেইল ব্যয়ে বাড়তি ৯০ হাজার কোটি ডলার ব্যয় করেছেন ভোক্তারা। অন্যভাবে বলা যায়, ২০২০ সালে প্রতি ৫ ডলার রিটেইল বা খুচরা কেনাকাটায় ১ ডলার ব্যয় হয়েছে ই-কমার্সে, তুলনামূলকভাবে ২০১৯ সালে যা ছিল প্রতি ৭ ডলারে ১ ডলার।

এতে বলা হয়, মহামারির কারণে সশরীরে উপস্থিতি বিঘ্নিত খুচরা বিক্রেতা, রেস্তোরাঁ এবং অন্যান্য বড় ও ছোট ব্যবসার ক্ষেত্রে সেবাদাতারা অনলাইনে ভোক্তার কাছে পণ্য বা সেবা পৌঁছে দিয়েছেন। মাস্টারকার্ডের 'রিকভারি ইনসাইট'-এর মতে, করোনা মহামারির কারণে ডিজিটাল খাতে নতুন করে সম্পৃক্ত হওয়া ২০ থেকে ৩০ শতাংশ নতুন ব্যবসা বা উদ্যোগ স্থায়ী হতে পারে।

মাস্টারকার্ডের চিফ ইকোনমিস্ট ব্রিকলিন ডাওয়ের বলেন, 'যখন ভোক্তারা ঘরে আবদ্ধ থাকছেন, ই-কমার্সের কারণে তখন তাদের অর্থ বহুদূর পরিভ্রমণ করছে।' তিনি আরও বলেন, 'যেসব দেশ বা কোম্পানি ডিজিটাল খাতকে গুরুত্ব দিয়েছে, তারা দ্রুত সুবিধা নিতে পেরেছে।'\হরিপোর্টে বলা হয়, হাতের কাছে অনেক বেশি অপশন থাকায় ভোক্তারা আন্তর্জাতিক ই-কমার্সে অর্থ ব্যয় করছেন। ২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তা ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশ্বজুড়ে ওয়েবসাইট ও অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে আগের চেয়ে কেনাকাটা বেড়েছে।

মন্তব্য করুন