গত কয়েক মাস লেনদেনে শীর্ষ অবস্থান ধরে রাখলেও বেক্সিমকো গ্রুপের কোম্পানিগুলো মাঝে কিছুটা দর হারিয়েছিল। গত এক সপ্তাহ ধরে বেক্সিমকো কোম্পানিগুলোর দর আবার বাড়ছে। গত এক সপ্তাহ ধরে বাড়তে থাকা বীমার শেয়ারদরে পিছুটান পড়েছে। দর কমতে শুরু করায় বিক্রি বেড়েছে বীমা খাতে।

পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সর্বশেষ ছয় কার্যদিবসে বেক্সিমকো লিমিটেডের শেয়ারদর ৬৮ থেকে বেড়ে গতকাল মঙ্গলবার ৮৬ টাকায় উঠেছে। প্রায় টানা বেড়ে শেয়ারটি গত মধ্য ফেব্রুয়ারিতে ৯৮ টাকায় ওঠার পর প্রায় দুই মাস ধরে কমছিল। একই চিত্র দেখা গেছে, বেক্সিমকো ফার্মার ক্ষেত্রে। বেক্সিমকো লিমিটেড ও ফার্মার দর বাড়তেই এ গ্রুপের শাইনপুকুর সিরামিকের দরও বাড়তে শুরু করেছে। গতকাল ডিএসইতে সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ দরে কেনাবেচা হয়েছে এ শেয়ার।

শুধু বেক্সিমকো গ্রুপ নয়, সাম্প্রতিক সময়ে লেনদেনের শীর্ষ অবস্থানে থাকা লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, রবি, বিডি ফাইন্যান্স, লাফার্জ-হোলসিম সিমেন্ট, স্কয়ার ফার্মাসহ বেশ কিছু শেয়ার পুনরায় দরবৃদ্ধির ধারায় ফিরেছে। এতে এসব শেয়ারের লেনদেন আরও বেড়েছে। বাজারের বৃহৎ মূলধনি এসব শেয়ারের দর বাড়ার কারণে মূল্য সূচকের পালেও হাওয়া লেগেছে। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচক ৭১ পয়েন্ট বেড়ে ৫৪২১ পয়েন্ট ছাড়িয়েছে, যা গত ২৩ মার্চের পর সর্বোচ্চ। লেনদেন প্রায় এক হাজার ৩০০ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে, যা গত ২৫ জানুয়ারির পর সর্বোচ্চ। যদিও গতকালের লেনদেনে গ্রামীণফোন, প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স এবং ইউনাইটেড পাওয়ারের মোট পৌনে চারশ কোটি টাকার ব্লকে শেয়ার লেনদেন রয়েছে।

এদিকে গত এক সপ্তাহ ধরে বাড়তে থাকা বীমা খাতের বেশিরভাগ শেয়ার দর হারাতে শুরু করেছে। এমন অবস্থায় অনেকে শেয়ার বিক্রি করলে সোমবারের তুলনায় গতকাল এ খাতের লেনদেন প্রায় ১৯১ কোটি টাকা বেড়ে ৪০৫ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে, যা গতকালের ডিএসইর মোট লেনদেনের ৩১ দশমিক ১৯ শতাংশ। গতকাল এ খাতের লেনদেন হওয়া ৪৮ শেয়ারের মধ্যে ২৮টি দর হারিয়েছে।\হদিনের লেনদেন শেষে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ডিএসইতে ৩৫৪ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে বেড়েছে ১৯৩টির, দর হারিয়েছে ৯৮টি এবং অপরিবর্তিত ছিল ৬৩টির দর। দ্বিতীয় শেয়ারবাজার সিএসইতে ১৩৩ কোম্পানির শেয়ার ও ফান্ডের দরবৃদ্ধির বিপরীতে ৭৬টির দর কমেছে।

বীমার মতো বস্ত্র খাতের বেশিরভাগ শেয়ারও দর হারিয়েছে। বাকি সব খাতের অধিকাংশ শেয়ারের দর বেড়েছে। মিউচুয়াল ফান্ড ছিল ঊর্ধ্বমুখী। ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতের লেনদেন হওয়া ২২ শেয়ারের মধ্যে ১৪টির দর বেড়েছে, কমেছে ৪টির। এ খাতের সার্বিক শেয়ারদর বেড়েছে আড়াই শতাংশ। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের ২২ শেয়ারের গড় দর বেড়েছে ১ শতাংশ হারে। সিমেন্ট খাতের সার্বিক দর বেড়েছে পৌনে ৪ শতাংশ।

ডিএসইতে দরবৃদ্ধির শীর্ষে থাকা ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্স, মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজ, আনোয়ার গ্যালভানাইজিং, উসমানিয়া গ্লাস, গোল্ডেন সন এবং শাইনপুকুর সিরামিক্সের দর ৯ থেকে ১০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। ৫ থেকে ৬ শতাংশ পর্যন্ত দর হারিয়ে দরপতনের শীর্ষে ছিল প্রভাতী, কন্টিনেন্টাল ও সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স। ব্লক বাদে ১৪৮ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন নিয়ে একক কোম্পানি হিসেবে লেনদেনের শীর্ষে ছিল বেক্সিমকো লিমিটেড। পৌনে ৪৮ কোটি টাকার লেনদেন নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল বেক্সিমকো ফার্মা। ৩৫ থেকে ৩৭ কোটি টাকার লেনদেন নিয়ে পরের অবস্থানে ছিল লংকাবাংলা, রবি এবং বিডি ফাইন্যান্স।

মন্তব্য করুন