সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে কিছুটা গতি ফিরেছে। তবে করোনা-পূর্ব স্বাভাবিক অবস্থায় এখনও যেতে পারেনি বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) বাস্তবায়ন। চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাস অর্থাৎ জুলাই-অক্টোবর সময়ে এডিপি বাস্তবায়নের হার ১৩ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ। গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় এ হার কিছুটা বেশি। ওই সময়ে বাস্তবায়নের হার ছিল ১২ দশমিক ৭৯ শতাংশ। করোনা সংক্রমণের আগের ২০১৯-২০ অর্থবছরের এই চার মাসে এডিপি বাস্তবায়নের হার ছিল ১৪ দশমিক ২৫ শতাংশ।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এডিপি বাস্তবায়নের এ তথ্য জানা গেছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, সার্বিকভাবে গত চার মাসের হিসাবের বাইরে একক মাসের হিসেবেও গত অক্টোবরে এডিপি বাস্তবায়নের হার সামান্য বেড়েছে। বাস্তবায়নের হার ৪ দশমিক ৮০ শতাংশ। গত বছরের এ মাসটিতে যা ছিল ৪ দশমিক ৭৩ শতাংশ।

আইএমইডির প্রতিবেদন বিশ্নেষণে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে মোট ৩০ হাজার ৯১৯ কোটি টাকা খরচ করা সম্ভব হয়েছে। আগের অর্থবছরের একই সময়ে এ পরিমাণ ছিল ২৭ হাজার ৪৫২ কোটি টাকা। অন্যদিকে, একক মাসের হিসেবে অক্টোবরে এডিপির ব্যয় ছিল ১১ হাজার ৩৬০ কোটি টাকা। গত বছরের অক্টোবরে এর পরিমাণ ছিল ১০ হাজার ১৫০ কোটি টাকা।

চলতি অর্থবছর এডিপির বরাদ্দ গত অর্থবছরের তুলনায় বেড়েছে ২২ হাজার ১৮২ কোটি টাকা। মোট আকারে দুই লাখ ৩৬ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা। এক হাজার ৫৯১টি প্রকল্পের বিপরীতে এই বরাদ্দ রয়েছে।

সাধারণত উন্নয়ন ব্যয়ে অর্থের উৎস হিসেবে বিদেশি ঋণের তুলনায় সরকারি অর্থের ব্যবহার বেশি হয়ে থাকে। এবারও এই প্রবণতার ব্যত্যয় হয়নি। অর্থবছরের চার মাসে সরকারি অর্থের ব্যবহার হয়েছে ১৪ দশমিক ২৪ শতাংশ। এ সময়ে বিদেশি ঋণ সহায়তা থেকে ব্যয় হয়েছে ১১ দশমিক ২০ শতাংশ।

মন্তব্য করুন