ঢাকা আন্তর্জাতিকচলচ্চিত্র উৎসব শুরুঅব্যবস্থাপনায় দর্শকদের হতাশা

প্রকাশ: ১১ জানুয়ারি ২০১৪      

সমকাল প্রতিবেদক
আগ্রহ নিয়ে অনেকেই অপেক্ষায় থাকেন ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের জন্য। আগের বছরগুলোতে জৌলুসপূর্ণ আয়োজন থাকত। পরিবার-পরিজন নিয়ে অনেকে আসতেন ছবি উপভোগ করতে। কিন্তু এবার তা দেখা যাচ্ছে না। চরম অব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে শুক্রবার এ উৎসবের উদ্বোধন হয়। উৎসবকে ঘিরে কোথাও উৎসাহ-আমেজ দেখা যায়নি। দু'দিন আগেও ছিল না উৎসবের কোনো প্রচার। অথচ বছরজুড়ে প্রচার চালানোর কথা ছিল এ উৎসবের জন্য। উৎসবে কোথায়, কখন, কোন দেশের কী কী ছবি দেখানো হবে, তারও কোনো তথ্য নেই। উদ্বোধনী স্থান জাতীয় জাদুঘর ও সুফিয়া কামাল জাতীয় গণগ্রন্থাগার চত্বরে শুক্রবার দর্শকের চেয়ে স্বেচ্ছাসেবক ছিল বেশি, তার পরও তাদের কাছে উৎসব সম্পর্কিত কোনো তথ্য ছিল না।
জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে রেইনবো চলচ্চিত্র সোসাইটির ৯ দিনের এ উৎসব উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও সংস্কৃতিমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেখানো হয় বেলজিয়াম-ফ্রান্স-মরক্কোর যৌথ প্রযোজনায় কাদিয়া লেকলেরে পরিচালিত 'দ্য ব্যাগ অব ফ্লাওয়ার'। উৎসবে ৫৮টি দেশের ১৭৮টি ছবি দেখানো হচ্ছে। রাজধানীর পাঁচটি ভেন্যুতে একযোগে চলবে এ উৎসব। পাঁচটি ভেন্যু হলো_ জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তন ও কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তন, সুফিয়া কামাল জাতীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান মিলনায়তন, ধানমণ্ডির ইএমকে সেন্টার ও আলিয়ঁস ফ্রঁসেজ।

সাতটি বিভাগ নিয়ে সাজানো হয়েছে এবারের উৎসব। বিভাগগুলো হলো_ প্রতিযোগিতা বিভাগ, রেট্রোস্পেকটিভ বিভাগ, সিনেমা অব দ্য ওয়ার্ল্ড বিভাগ, চিলড্রেনস বিভাগ, স্পিরিচুয়াল ফিল্মস, উইমেন ফিল্মমেকারস সেকশন ও ইনডিপেনডেন্ট ফিল্মস বিভাগ। প্রতিযোগিতা বিভাগে অংশ নেবে অস্ট্রেলিয়া ও এশিয়ার ২২টি সিনেমা। পুরস্কার হিসেবে সেরা চলচ্চিত্রকারকে দেওয়া হবে ক্রেস্ট, সনদ ও এক লাখ টাকা।
উৎসবে খালিদ মাহমুদ মিঠু পরিচালিত 'জোনাকির আলো' ছবির প্রিমিয়ার হবে। এ ছাড়া থাকছে হুমায়ূন আহমেদের 'ঘেটুপুত্র কমলা', রেদওয়ান রনির 'চোরাবালি', শাহনেওয়াজ কাকলীর 'উত্তরের সুর', অমিত আশরাফের 'উধাও' ছবির প্রদর্শন। উৎসব শেষ হবে ১৮ জানুয়ারি মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত 'টেলিভিশন' দেখানোর মধ্য দিয়ে।