রংপুর নগরীতে ছিনতাই বেড়েছে

প্রকাশ: ২২ জানুয়ারি ২০১৪      

রংপুর অফিস
রংপুর নগরীতে ছিনতাইয়ের ঘটনা উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে। আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় ছিনতাই বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হলেও তা বাস্তবে দেখা যাচ্ছে না। ছিনতাইয়ের প্রবণতা বৃদ্ধিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে সিটি করপোরেশনের মেয়র ৩৩টি ওয়ার্ডে শান্তি কমিটি গঠনের মাধ্যমে রাতে পাহারা দেওয়ার জন্য কাউন্সিলরদের নির্দেশ দিয়েছেন।
নগরীর ভাঙ্গা মসজিদ গলি, ফায়ার সার্ভিস মোড়, শাহীপাড়া মোড়, দখিগঞ্জ শ্মশান, আলমনগর আরডিসিসিএস মোড়, পীরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মোড়, লালবাগ কৃষি খামার, তাজহাট কবরস্থান, মেডিকেল পূর্বগেট, টেক্সটাইল মোড়, ধাপ চেকপোস্ট, সাহেবগঞ্জ মোড়, মাহীগঞ্জ সরেয়ারতল, শালবন, মুলাটোল চারমাথা মোড়, কেরানীপাড়া মোড়, কলেজ রোড চারতলার সামনে, জিলা স্কুল মোড়, বাংলাদেশ ব্যাংক মোড়, ধাপ লালকুঠি সড়কসহ ৩০টি স্থানে প্রায় প্রতি রাতেই ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। গত তিন সপ্তাহে ৫০টি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। ছিনতাইকারীদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হয়েছেন ১০ জন।
এদিকে জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সদস্য মহানগর দোকান মালিক সমিতির মহাসচিব রেজাউল ইসলাম মিলন বলেন, নেশাখোররাই নেশার টাকা জোগাড় করতেই ছিনতাই করছে। গত রোববার আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা, সিটি মেয়র সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টুসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সেখানে ছিনতাই বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু জানান, নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে ছিনতাই ঘটনা বেড়েছে। পুলিশের কোনো উদ্যোগ নেই। যে কারণে শান্তি কমিটি গঠন করে রাতে পাহারা দেওয়ার জন্য কাউন্সিলরদের নির্দেশ দিয়েছি।
এ ব্যাপারে কোতোয়ালি থানার ওসি শাহাবুদ্দিন খলিফা জানান, ছিনতাইপ্রবণ এলাকাগুলোতে পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে। এতে করে আগের চেয়ে নগরীতে ছিনতাইয়ের ঘটনা অনেক কমে গেছে।