জুরাইনে দম্পতিকে অচেতন করে স্বর্ণ ও টাকা লুট, গৃহকর্ত্রীর মৃত্যু

পৃথক ঘটনায় মৃত্যু আরও দু'জনের

প্রকাশ: ২২ জানুয়ারি ২০১৪

সমকাল প্রতিবেদক
রাজধানীর জুরাইনে বাড়ির মালিক ও তার স্ত্রীকে চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে স্বর্ণালঙ্কার ও অর্থ নিয়ে পালিয়েছে ভাড়াটে। মাত্রাতিরিক্ত ওষুধ খাওয়ানোর ফলে মারা গেছেন বাড়ির মালিকের স্ত্রী সমর্থ বেগম (৬০)। অচেতন অবস্থায় বাড়ির মালিক নুরুল ইসলামকে (৬৫) ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।
নুরুল ইসলাম দম্পতির নিকটাত্মীয় মনির হোসেন সাংবাদিকদের জানান, নতুন জুরাইনের ৬৮/১ নম্বর বাসার দোতলায় সমর্থ ও তার স্বামী থাকতেন। চলতি মাসে ওই বাড়ির নিচতলায় আবদুর রাজ্জাক নামের একজন ভাড়াটে ওঠেন। গতকাল সকালে মনির ব্যক্তিগত প্রয়োজনে ওই বাসায় গিয়ে দু'জনকে অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। এ সময় সমর্থ বেগমের নাক-মুখ দিয়ে রক্ত বের হচ্ছিল। ঘরের জিনিসপত্র ছিল এলোমেলো। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাদের ঢামেক হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সমর্থকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পর থেকে ভাড়াটে রাজ্জাক পলাতক রয়েছে।
কদমতলী থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম সমকালকে বলেন, ভাড়াটে আবদুর রাজ্জাকই এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
আরও দু'জনের মৃত্যু :বনানী থানার উপপরিদর্শক হারুনুর রশীদ জানান, ১৯ জানুয়ারি রাতে মহাখালী কাঁচাবাজার এলাকায় ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে আহত হন জিল্লুর রহমান (৩৫)। ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার রাতে তার মৃত্যু হয়। তার গ্রামের বাড়ি শেরপুর সদরে। পল্লবী থানার উপপরিদর্শক জিল্লুর রহমান জানান, মঙ্গলবার সকালে মিরপুর সেনানিবাসের শাপলা ভবনের পশ্চিম পাশের লেক থেকে অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়।