সংসদে আশরাফ

বিচ্ছিন্ন ঘটনায় সশস্ত্র বাহিনীর নেতিবাচক মূল্যায়ন করা যাবে না

প্রকাশ: ১০ জুন ২০১৪      

সমকাল প্রতিবেদক

বাংলাদেশে বেশ কয়েকটি প্রকল্পে সেনাবাহিনী নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে জনগণের আস্থা অর্জন করেছে বলে দাবি করেছেন সংসদ কাজে সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তিনি বলেন, গণকর্মচারী ও সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের মেধা ও দক্ষতার সংমিশ্রণে বিভিন্ন বাহিনী ও জনপ্রশাসনকে শক্তিশালী করা হবে। গতকাল সোমবার সংসদে টেবিলে
উত্থাপিত প্রশ্নোত্তরে তিনি এসব কথা বলেন। এর আগে বিকেল সোয়া চারটার দিকে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের অধিবেধশন শুরু হয়।
সিলেট-৫ আসনের সাংসদ সেলিম উদ্দিন এ সম্পর্কিত প্রশ্নে বলেন, সশস্ত্র বাহিনীর কর্মকর্তাদের র‌্যাবসহ বিভিন্ন বাহিনী এবং জনপ্রশাসনে প্রেষণে পদায়নের ফলে তারা বিভিন্ন অপকর্মে সম্পৃক্ত হয়ে নিজস্ব বাহিনীর সুনাম ক্ষুণ্ন করছে। তিনি জানতে চান, বিভিন্ন বাহিনী ও জনপ্রশাসনে তাদের প্রেষণে পদায়ন বন্ধ করে সব বাহিনী ও জনপ্রশাসনকে শক্তিশালী করার পরিকল্পনা আছে কি-না।
জবাবে সৈয়দ আশরাফ বলেন, বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে কোনো বাহিনী বা সংস্থার নেতিবাচক মূল্যায়ন সুবিবেচনা প্রসূত হতে পারে না। কাজেই এসব সংস্থায় বড় ধরনের সাংগঠনিক পরিবর্তন বা প্রেষণে নিয়োগ স্থগিত করার পরিবর্তে সমস্যা চিহ্নিত করে প্রচলিত ব্যবস্থার সংশোধন ও পরিমার্জন করাই অধিকতর ফলপ্রসূ হবে।
কিশোরগঞ্জ-২ আসনের সোহরাব উদ্দিনের প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ১১৬ জন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার গেজেট ও সনদ বাতিল করে তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করা হয়েছে। এ ছাড়া ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সনদ নিয়ে অতীতে ও বর্তমানে সরকারি চাকরিতে সুবিধা নেওয়া কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের শনাক্ত করে তাদের সনদ ও গেজেট বাতিলের ব্যবস্থা চলমান আছে।