পঁচাত্তরে আ'লীগের লোকেরাই একে অপরকে হত্যা করেছেন -তারেক রহমান

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০১৪      

বিডিনিউজ

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান বলেছেন, যে ব্যক্তিরা শেখ মুজিবের হত্যাকাণ্ডের প্লট তৈরি করেছিলেন, যে ব্যক্তিরা খন্দকার মোশতাকের শপথ অনুষ্ঠানে অংশ নিতে বঙ্গভবনে গিয়েছিলেন, তারাই এখন শেখ হাসিনার চারপাশে ঘোরাঘুরি করছেন।
রোববার লন্ডনের কুইন মেরি ইউনিভার্সিটিতে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। ১৯৭৫ সালের বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডে এবং তারপর রাজনৈতিক পটপরিবর্তনে জিয়াউর রহমানের রাষ্ট্রক্ষমতায় আসার ঘটনা নিয়ে অনুষ্ঠানে নিজের মতো করে ব্যাখ্যা উপস্থাপন করেন তারেক। প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক কিছু মন্তব্যের জবাবে তিনি পাল্টা অভিযোগ তোলেন। তারেকের দাবি, পঁচাত্তরে আওয়ামী লীগের লোকেরাই একজন আরেকজনকে হত্যা করেছে, একজন আরেকজনের কাছ থেকে ক্ষমতা দখল করেছে। তখন বিএনপির সৃষ্টি হয়নি এবং জিয়াউর রহমান এসব থেকে তখন অনেক দূরে।
তারেক রহমান বলেন, '১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট একটি ঘটনা ঘটেছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে। একটি দুঃখজনক ঘটনা। একটি হত্যাকাণ্ড ঘটেছিল। যে কোনো হত্যাকাণ্ড অবশ্যই নিন্দনীয়।' তিনি বলেন, 'আজকে পরিষ্কার হয়ে গেছে যে, শেখ হাসিনা শুধু নিজের ক্ষমতা ধরে রাখার জন্য, নিজের ক্ষমতার মোহের কারণে তার পিতার হত্যাকারী এবং সেই হত্যার প্লট যারা তৈরি করেছিলেন সেই সব ব্যক্তির সঙ্গে সখ্য করতে পিছপা হননি।'
আওয়ামী লীগের ব্যর্থতার কারণেই পঁচাত্তরের ৭ নভেম্বর দেশের সিপাহি-জনতা জিয়াউর রহমানকে বাংলাদেশের নেতৃত্ব দিয়েছিল বলে দাবি করেন তারেক রহমান। তিনি ২০০৯ সালে পিলখানা হত্যাকাণ্ডের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দায়ী করেন এবং ২০১৩ সালের মে মাসে মতিঝিল থেকে হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের সরিয়ে দিতে নির্বিচারে গুলি করে আড়াই থেকে তিন হাজার মানুষকে হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ করেন। সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ব্যানারে 'স্ট্র্যাটেজি ফর প্রসপারাস' বাংলাদেশ শীর্ষক এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব
করেন কার্ডিফ ইউনিভার্সিটির শিক্ষক এমএ মালেক।