অভিনব কায়দায় ৯ লাখ টাকা ছিনতাই

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৬      

সমকাল প্রতিবেদক

গতকাল শনিবার রাজধানীর মতিঝিল থেকে বাইসাইকেলে করে কলাবাগানের বাসায় ফিরছিলেন শামসুজ্জামান রতন। বেইলি রোড হয়ে তিনি রমনা পার্কের কাছাকাছি পেঁৗছান বিকেল ৪টার দিকে। এ সময় একটি কালো মাইক্রোবাস থেকে তাকে থামার কথা বলা হয়। ওয়াকিটকি হাতে করে একজন মাইক্রোবাস থেকে নেমে আসেন। কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাকে ধাক্কা দিয়ে মাইক্রোবাসে তুলে নেন তিনি। পরক্ষণেই কয়েকজন দুর্বৃত্ত হাতকড়া পরিয়ে তার চোখ বেঁধে ফেলে। ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে তাকে চিৎকার
করতে নিষেধ করে তারা। ছিনিয়ে নেয় রতনের সঙ্গে থাকা ২০ হাজার রিঙ্গিত ও সাড়ে চার লাখ টাকা। তারপর প্রায় দেড় ঘণ্টা চোখ বেঁধে বিভিন্ন স্থানে ঘুরিয়ে নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় তাকে ফেলে রেখে যায় ছিনতাইকারীরা।
শামসুজ্জামান রতন সমকালকে বলেন, তিনি সাধারণত বাইসাইকেলেই চলাচল করেন। গতকাল মতিঝিলে ব্যবসায়িক কাজ শেষ করে দেশি ও বিদেশি মুদ্রা মিলিয়ে ৯ লাখ টাকা নিয়ে বাসায় ফিরছিলেন। তারপর বেইলি রোড দিয়ে হেয়ার রোডে পেঁৗছলে তিনি ছিনতাইকারীদের কবলে পড়েন। ছিনতাইকারী দলে অন্তত পাঁচজন ছিল। তারা গোয়েন্দা পুলিশের সদস্য এ বিষয়টি বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে। সব টাকা নিয়ে নেওয়ার কিছুক্ষণ পর মাইক্রোবাস থেকে একজন নেমে যায়। নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ডে তাকে গাড়ি থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়া হয়। সেখান থেকে তিনি বাসে করে বাসায় ফেরেন।
রমনা থানার ওসি মশিউর রহমান সমকালকে বলেন, গোয়েন্দা পুলিশের পরিচয় দিয়ে এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে সাড়ে লাখ টাকা ও ২০ হাজার রিঙ্গিত ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি থানায় মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।