নড়াইলে 'বন্দুকযুদ্ধে' ডাকাত নিহত

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৬      

সমকাল ডেস্ক

নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে রাকিব শেখ (৩০) নামে এক ডাকাত নিহত হয়েছে। এ সময় এক এএসআইসহ তিন পুলিশ সদস্যও আহত হন। নিহত রাকিব শেখ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার বলে জানিয়েছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে লোহাগড়া, নড়াইল, গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী থানায় ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপরাধে অন্তত ১২টি মামলা রয়েছে। এ ছাড়া সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আহত হয়েছেন সঞ্জিত অধিকারী নামে এক চরমপন্থি। সে গত ১০ জুন বন্দুকযুদ্ধে নিহত পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির (জনযুদ্ধ) আঞ্চলিক নেতা মোজাফফর সানার ঘনিষ্ঠ সহযোগী ও দলের সক্রিয় সদস্য বলে দাবি করেছে পুলিশ। অন্যদিকে, যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আবু ইছা নামে এক সাবেক ইউপি সদস্য আহত হয়েছেন। তিনি সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হন। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ডাকাতি, নাশকতা ও অস্ত্র আইনে অন্তত ৮টি মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। সমকালের অফিস ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :
লোহাগড়া :লোহাগড়া থানার ওসি বিপ্লব কুমার সাহা জানান, শুক্রবার রাত আড়াইটার দিকে দিঘলিয়া ইউনিয়নের খালচর গ্রামে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে টহল পুলিশের সঙ্গে ডাকাতদের গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে পুলিশের গুলিতে ডাকাত সর্দার রাকিব গুলিবিদ্ধ হয় ও তার সঙ্গীরা পালিয়ে যায়। এ সময় লোহাগড়া থানার এএসআই খান মিজান, কনস্টেবল আ. কাদের, তরিকুল ও মোকারবি আহত হন। পরে গুলিবিদ্ধ রাকিবকে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, গুলি, একটি চাইনিজ কুড়াল ও তিনটি রামদা উদ্ধার করা হয়েছে। রাকিব শেখ লোহাগড়া উপজেলার জয়পুর ইউপির চাঁচই গ্রামের মকলেস শেখের ছেলে।
তালা :সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের তথ্য কর্মকর্তা ও এসআই কামাল হোসেন জানান, শুক্রবার রাত দেড়টার দিকে তালা থানার এসআই রইচউদ্দিনের নেতৃত্বে একটি দল খেশরা ইউনিয়নের তেঘরিয়া এলাকায় অভিযান চালাতে যাওয়ার সময় একদল সন্ত্রাসী পুলিশকে লক্ষ্য করে ককটেল ছোড়ে। এতে এএসআই বাদশা আহত হন। এ সময় পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে সঞ্জিত অধিকারী আহত হন ও
তার সঙ্গীরা পালিয়ে যায়। গুলিবিদ্ধ সঞ্জিতকে উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি ওই উপজেলার জালালপুর গ্রামের কার্তিক অধিকারীর ছেলে।
যশোর :বাঘারপাড়া থানার ওসি ছয়রুদ্দিন আহমেদ জানান, শনিবার ভোরে খাজুরা-বাঘারপাড়া সড়কের তেলি ধান্যখোলা এলাকায় একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এ সময় পুলিশ সেখানে অভিযান চালালে ডাকাতরা তাদের লক্ষ্য করে বোমা হামলা ও গুলি চালায়। পরে পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে ডাকাতরা পালিয়ে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে আবু ইছাকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটারগান, ১ রাউন্ড গুলি, ৪টি গাছি দা উদ্ধার করা হয়। গুলিবিদ্ধ আবু ইছাকে প্রথমে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে। তিনি ওই উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের নলডাঙ্গা গ্রামের নেছার উদ্দিনের ছেলে।