রংপুরে পুলিশের বিরুদ্ধে একজনকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৬      

রংপুর অফিস

রংপুর নগরীর চিনিয়াপাড়া এলাকায় রাজু মিয়া (৫০) নামে একজনকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় সেখানে উত্তেজনা বিরাজ করছে। গতকাল শনিবার রাতে ওই ঘটনা ঘটে। তবে পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছে।
এলাকাবাসী ও নিহতের পরিবারের অভিযোগ, রংপুর নগরীর তাজহাট এরশাদনগর চিনিয়াপাড়া এলাকার মৃত সৈয়দ এয়ার আলীর ছেলে রাজু মিয়া দিনমজুরি করেন। তার স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। গতকাল শনিবার রাতে ওই এলাকায় জুয়া খেলা হচ্ছে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ অভিযান চালায়। জুয়ার আসরের একটু দূরে থাকা রাজু মিয়াও পুলিশ দেখে দৌড়ে পাশের বাড়িতে আত্মগোপন করেন। পুলিশ সেখানে গিয়ে তাকে মারধর করে বলে অভিযোগ করা হয়। পুলিশের মারধরে রাজু মিয়া মাটিতে লুটিয়ে পড়েন এবং সেখানেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় এলাকাবাসী রাতেই বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। তারা দোষী পুলিশের শাস্তি দাবি করে। তবে পুলিশ বলছে, ওই লোকটি মাদকাসক্ত। পুলিশের ভয়েই তিনি মারা গেছেন বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েক পুলিশ সদস্য জানিয়েছেন।
এলাকাবাসী জমির উদ্দিন ও খয়বর মিয়া জানান, রাজু অত্যন্ত ভালো লোক ছিলেন। তিনি কখনই জুয়া খেলতেন না। পুলিশ নির্দোষ ওই লোকটিকে পিটিয়ে মেরেছে। তারা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষী পুলিশের শাস্তি দাবি করেছেন। ১০-১২ জন পুলিশ ওই ঘটনা ঘটায়।
নিহতের ছেলে রিফাত জানান, তার বাবা কখনই জুয়া খেলতেন না। পুলিশের ভয়ে পালিয়েছিলেন। অকারণে পুলিশ তার বাবাকে পিটিয়ে মেরেছেন। তার বাবা অনেক অনুরোধ করেছিলেন পুলিশকে। পুলিশ তা মানেনি।
নিহতের স্ত্রী বিলকিস বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, 'আমার স্বামী নির্দোষ। আমার স্বামীকে পুলিশ পিটিয়ে মেরেছে। এখন আমার কী হবে। আমি তিন সন্তান নিয়ে কোথায় যাব, কি নিয়ে বাঁচব।' তিনি দোষী পুলিশের কঠোর শাস্তি চান। যাতে ভবিষ্যতে কোনো পুলিশ আর নিরপরাধ ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা করতে না পারে।
রংপুর সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র ও ওই এলাকার কাউন্সিলর আবুল কাশেম বলেন, লোকটি ভালো ছিলেন। তিনি জানান, লোকজনের অভিযোগ পুলিশ রাজু মিয়াকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। তিনি এ ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেন।
কোতোয়ালি থানার ওসি এবিএম জাহিদুল ইসলাম জানান, কী কারণে এ ঘটনা ঘটেছে তা তিনি জানেন না। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে পুলিশের বিরুদ্ধে রাজুকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।