চিনি রফতানিতে কর বসাচ্ছে ভারত

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৬      

সমকাল ডেস্ক

অভ্যন্তরীণ বাজারে দাম স্থিতিশীল রাখতে চিনি রফতানির ওপর ২৫ শতাংশ কর আরোপ করতে যাচ্ছে ভারত। এর ফলে পণ্যটির বৈশ্বিক দাম আরও বৃদ্ধির পাশাপাশি থাইল্যান্ড থেকে রফতানি বেড়ে যেতে পারে। খবর রয়টার্সের।
এর ফলে বাংলাদেশের চিনির বাজারে কোনো প্রভাব পড়ার আশঙ্কা নেই বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করেন। দেশের চাহিদার তুলনায় মজুদ পরিস্থিতি ভালো থাকায় গত বছর চিনি আমদানির ওপর ২০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক বসিয়েছে সরকার। দেশ থেকে চিনি রফতানি করারও উদ্যোগ রয়েছে।
ব্রাজিলের পর বিশ্বের শীর্ষ চিনি উৎপাদনকারী দেশ ভারতের প্রধান এলাকাগুলোতে খরার কারণে এবার ফলন কমবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ভারতের খাদ্যমন্ত্রী রামবিলাস পাসওয়ানকে উদ্ধৃত করে রয়টার্স বলেছে, বিশ্বে চিনির সর্বোচ্চ সংখ্যক ভোক্তার দেশটিতে দাম যাতে নিয়ন্ত্রণে থাকে সে লক্ষ্যে দেশের চিনি রফতানির লাগাম টেনে ধরতেই এ করারোপ করা হচ্ছে।
এক টুইটবার্তায় পাসওয়ান বলেন, 'আন্তর্জাতিক বাজারে চিনির দাম বাড়ার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। তাই মুনাফা করার জন্য ব্যবসায়ীরা চিনির রফতানি বাড়াতে পারেন।'
ব্যবসায়ী ও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নতুন কর আরোপের ফলে বিশ্বে চিনির দাম বেড়ে যেতে পারে। পর পর দু'বছর খরার কারণে এমনিতেই আগামী অক্টোবর থেকে ভারত আমদানিপ্রধান দেশে পরিণত হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কোটাক কমোডিটিজের গবেষক অরবিন্দ প্রসাদ বলেন, এ কর আরোপের ফলে চিনির বৈশ্বিক দরে পাঁচ শতাংশ প্রভাব পড়তে পারে, এর বেশি হবে না।
যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগের (ইউএসডিএ) তথ্য অনুযায়ী, ২০১৫-১৬ (এপ্রিল-মার্চ) অর্থবছরে ভারত ২৯ লাখ টন চিনি রফতানি করেছে, যা বিশ্ব রফতানির ৫ দশমিক ৩ শতাংশ। ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এ সময়ে ভারত ৫৫ হাজার ৭২ টন চিনি বাংলাদেশে রফতানি করেছে, যা আগের অর্থবছরের প্রায় অর্ধেক।