বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস আজ

প্রকাশ: ১৫ অক্টোবর ২০১৭

সমকাল প্রতিবেদক


আজ রোববার বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস। সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও ২০০৯ সাল থেকে দিবসটি পালিত হচ্ছে। যার মূল উদ্দেশ্য- রোগ প্রতিরোধে সঠিকভাবে হাত ধোয়ার অভ্যাস সম্পর্কে জনসচেতনতা বাড়ানো।
ইউনিসেফের হিসাবে, বিশ্বে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ায় মারা যায় সবচেয়ে বেশি শিশু। নিয়মিত হাত ধোয়ার মাধ্যমে তাদের বড় একটি অংশকে এসব রোগ থেকে রক্ষা করা সম্ভব। চিকিৎসকরা বলেন, হাত ধোয়ার মতো সাধারণ অভ্যাস গড়ে তুলতে পারলে শিশুদের আমাশয়, টাইফয়েড, জন্ডিস, ডায়রিয়া, কৃমির মতো রোগের সংক্রমণের আশঙ্কা কমে যায়।
হাতের লোমকূপের গোড়ায় এক বর্গমিলিমিটার জায়গায় ৫০ হাজার জীবাণু থাকতে পারে, যা খালি চোখে দেখা যায় না। সারাদিনের
নানা কাজে নানা বস্তু স্পর্শ করার মাধ্যমে এসব জীবাণু হাতে আসে। এই হাতে অন্যজনকে স্পর্শ করলে, তার কাছেও জীবাণু ছড়ায়। তাই ময়লা-আবর্জনা স্পর্শ করার পর, হাত দিয়ে নাক ঝাড়লে অবশ্যই সাবান বা জীবাণুনাশক দিয়ে হাত ধুতে হবে। শৌচকর্মের পরে ও খাওয়ার আগে জীবাণুমুক্ত করতে হাত ধুতে হবে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ সমকালকে বলেন, অপরিচ্ছন্ন অবস্থায় বা ভালোভাবে হাত না ধুয়ে খাবার খেলে বিভিন্ন ধরনের ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক ও অন্যান্য জীবাণু শরীরে প্রবেশ করে। ফলে সাধারণ ঠান্ডা বা ফ্লু থেকে শুরু করে ডায়রিয়া, জন্ডিস, আমাশয়, টাইফয়েডসহ বিভিন্ন ধরনের রোগে মানুষ আক্রান্ত হয়। হাত ধোয়ার সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ করে ৮০ শতাংশ রোগ ঠেকানো সম্ভব বলে জানান তিনি।
এদিকে হাত ধোয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে গতকাল শনিবার রাজধানীর রেসিডেনসিয়াল মডেল স্কুল মাঠে ১১ হাজার শিক্ষার্থীকে হাত ধোয়ার সঠিক পদ্ধতি শেখানো হয়। বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান ইউনিলিভার এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস উপলক্ষে আজ রোববার মানিক মিয়া এভিনিউয়ের রাজধানী উচ্চ বিদ্যালয়ে বাংলাদেশ ফুড সেফটি নেটওয়ার্কের (বিএফএসএন) শিক্ষার্থী সমাবেশ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম।