গোবিন্দগঞ্জে তিন সাঁওতাল হত্যা দিবস পালনের ঘোষণা

প্রকাশ: ১৫ অক্টোবর ২০১৭

গাইবান্ধা ও গোবিন্দগঞ্জ প্রতিনিধি


আগামী ৬ নভেম্বর গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে তিন সাঁওতাল হত্যাকা দিবস পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্মে আদিবাসী সাঁওতালদের পৈতৃক সম্পত্তি ফেরত দিয়ে তাদের পুনর্বাসন, গত বছর ৬ নভেম্বর ওই এলাকার আদিবাসী পল্লীতে পুলিশের গুলিতে নিহত তিন সাঁওতাল শ্যামল হেমব্রম, মঙ্গল কিসকু ও রমেশ টুডু হত্যাকা এবং অঘ্নিসংযোগ ও নির্যাতনের ঘটনা তদন্ত করে দায়ীদের শাস্তিসহ ৭ দফা দাবিতে ওই দিন গোবিন্দগঞ্জ শহীদ মিনারে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এ সমাবেশ সফলের লক্ষ্যে গতকাল শনিবার দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার ওসমানপুর আদিবাসী একাডেমিতে এক প্রস্তুতিমূলক আদিবাসী-বাঙালি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটি, আদিবাসী-বাঙালি সংহতি পরিষদ, বাংলাদেশ আদিবাসী ইউনিয়ন, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ ও জনউদ্যোগ এর আয়োজন করে।
সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সহসভাপতি ফিলিমন বাসকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তারা বলেন, ৬ নভেম্বর তিন সাঁওতাল হত্যাকান্ড দিবস পালন করা হবে। এ হত্যা মামলার আসামিদের ৫ নভেম্বরের মধ্যে গ্রেফতার করা না হলে ৬ নভেম্বর গোবিন্দগঞ্জ শহীদ মিনার থেকে বৃহত্তর আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। তারা আরও বলেন, রংপুর চিনিকল কর্তৃপক্ষ সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্মের জন্য সাঁওতাল ও বাঙালিদের কাছ থেকে যে শর্তের ভিত্তিতে এক হাজার ৮০০ একর
সম্পত্তি অধিগ্রহণ করেছিল, তা মিল অকার্যকর, আখ চাষ বাদ দিয়ে অন্য ফসল আবাদ ও স্থানীয় দুর্বৃত্তদের কাছে লিজ দেওয়ায় অশুভ চক্রান্তের কারণে সেই শর্ত মিল কর্তৃপক্ষ অনেক আগেই ভঙ্গ করেছে। এখন ওই শর্তের ভিত্তিতেই বাগদাফার্ম এলাকার ওই সম্পত্তির মালিক আদিবাসী সাঁওতাল ও বাঙালিরা।
বক্তারা সাঁওতাল হত্যাকাে গোবিন্দগঞ্জের সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ, সাপমারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাকিল আহম্মেদ বুলবুলসহ সব আসামিকে গ্রেফতার করে বিচার শুরু করার দাবি জানান। সমাবেশ থেকে ৬ নভেম্বর তিন সাঁওতাল হত্যাকা দিবস পালনে গোবিন্দগঞ্জ শহরের শহীদ মিনারে সকাল ১০টার কর্মসূচিতে আদিবাসী-বাঙালিদের উপস্থিত থাকার আহ্বান জানানো হয়।
সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য ও গাইবান্ধা জেলা সভাপতি মিহির ঘোষ, আদিবাসী-বাঙালি সংহতি পরিষদের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম বাবু, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদের গাইবান্ধা জেলা সমন্বয়ক গোলাম রব্বানী, আদিবাসী ইউনিয়ন নেতা বার্নাবাস, কমিউনিস্ট পার্টির গাইবান্ধা জেলা কমিটির সহসাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মুরাদজ্জামান রব্বানী, জনউদ্যোগের সদস্য সচিব প্রবীর চক্রবর্তী, সিপিবির গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা সভাপতি তাজুল ইসলাম, মানবাধিকার কর্মী অঞ্জলী রাণী দেবী, কাজী আবদুল খালেক, জাসদ নেতা অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী, বাংলাদেশ যুব ইউনিয়ন নেতা প্রিসিলা মুর্মু, আদিবাসী নেতা অনন্ত মাহাতো, লইশ মার্ডী, স্বপন শেখ, সুবল হেমব্রম, রোমেলা কিসকু প্রমুখ।