বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে কি-না সন্দেহ আছে :এরশাদ

প্রকাশ: ১৫ অক্টোবর ২০১৭

সমকাল প্রতিবেদক


জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, মাত্র ১০ বছর ক্ষমতার বাইরে থেকে বিএনপি ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। আগামী নির্বাচনে দলটি অংশ নিতে পারবে কি-না সন্দেহ রয়েছে। তিনি দাবি করেন, ক্ষমতা ছাড়ার ২৬ বছর পরও জনপ্রিয়তা নিয়ে রাজনীতিতে টিকে আছে জাপা।
গতকাল শনিবার রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে জাপার যৌথ সভায় এসব কথা বলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ। সভায় বিশেষ অতিথি বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ বলেন, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা এনেছেন। স্বাধীনতার সুফল ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়েছেন পল্লীবন্ধু এরশাদ।
সভায় জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য, এমপি, কেন্দ্রীয় কমিটি, অঙ্গসংগঠন, জেলা ও মহানগরের নেতারা অংশ নেন। নামে যৌথসভা হলেও তা শেষ পর্যন্ত জনসভায় রূপ নেয়। রাজধানীর বিভিন্ন থানা থেকে জাপার নেতা-কর্মীরা মিছিল নিয়ে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে জমায়েত হন। তাদের মিছিলের কারণে ইনস্টিটিউশনের সামনের রাস্তার এক পাশের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সাপ্তাহিক ছুটির দিনেও মৎস্য ভবন থেকে শাহবাগ মোড় পর্যন্ত যান চলাচল স্থবির হয়ে পড়ে। আশপাশের সড়কেও যানজট সৃষ্টি হয়।
সরকারের সমালোচনা করে এরশাদ বলেন, বাংলাদেশ নাকি এখন মধ্যম আয়ের দেশ! অথচ তিন টাকায় ডিম কিনতে শুক্রবার রাজধানীতে যা ঘটেছে, তাতে কি মনে হয় বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে!
জাপার সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ বলেন, ক্ষমতায় যেতে দলকে আরও সুসংগঠিত করতে হবে। শুধু ভোটার বাড়ালে হবে না। ভোট রক্ষার শক্তি অর্জন করতে হবে।
জাপার কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের
বলেন, যারা বিশ্বাসঘাতক তারা জাপা ছেড়ে চলে গেছে। আঁস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। আবার অনেক পরীক্ষিত কর্মী সঠিক মূল্যায়ন পাচ্ছে না। তাদের মূল্যায়ন করতে হবে।
জাপা মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, জাপা সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন চায়, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন নয়। তবে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সেনাবাহিনীকে মাঠে রাখতে হবে।
যৌথ সভায় বক্তৃতা করেন প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, শেখ সিরাজুল ইসলাম, ফখরুল ইমাম এমপি, মীর আবদুস সবুর আসুদ, সুনীল শুভরায় প্রমুখ।