দুই বাসের পাল্লায় এবার চলৎশক্তি হারাচ্ছেন এক নারী

প্রকাশ: ০৭ এপ্রিল ২০১৮      

সমকাল প্রতিবেদক

রাজধানীতে দুই বাসের প্রতিযোগিতার মধ্যে পড়ে এবার দুই পায়ের শক্তি হারাতে বসেছেন আয়েশা খাতুন (২৫) নামের এক নারী। তিনি ধানমণ্ডির একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আয়েশার স্বামী তানভীর আহমেদ তাহের চিকিৎসকের উদ্ৃব্দতি দিয়ে সমকালকে বলেন, তার স্ত্রীর মেরুদণ্ডের দুটি হাড় ভেঙে গেছে ও স্পাইনাল কর্ড ইনজুরি হয়েছে। এ কারণে তিনি দুই পায়ের শক্তি হারিয়েছেন। তিনি বসতে ও হাঁটতে পারছেন না। চিকিৎসক বলেছেন, তার পায়ের শক্তি ফিরে পাওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ। গত বৃহস্পতিবার সকালে নিউমার্কেট এলাকায় আয়েশা ও তার সাড়ে ছয় বছরের মেয়ে আহনাবকে বহনকারী রিকশাটিকে দুটি বাস দু'দিক থেকে চাপ দেয়। এতে রিকশাচালকসহ মা-মেয়ে আহত হন। তবে আহনাব ও রিকশাচালকের আঘাত গুরুতর নয়। তারা প্রাথমিক চিকিৎসা নেন। একটি বাসের চালককে গ্রেফতার করে নিউমার্কেট থানা পুলিশ। অন্য বাসের চালক পালিয়ে যায়।

গত মঙ্গলবার কারওয়ান বাজারের সার্ক ফোয়ারার সামনে দুটি বাসের প্রতিযোগিতায় হাত হারান তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীব হোসেন। এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই বৃহস্পতিবার নিউমার্কেট এলাকায় ওই ঘটনা ঘটল।

তানভীর জানান, তাদের বাসা লালবাগের আজিমপুরে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রিকশায় আহনাবকে ধানমণ্ডিতে স্কুলে পৌঁছে দিতে যাচ্ছিলেন আয়েশা। রিকশাটি নিউমার্কেট এলাকার চন্দ্রিমা সুপার মার্কেটের সামনে গেলে দুটি বাসের প্রতিযোগিতার মাঝখানে পড়ে।

এ ঘটনায় তানভীর বাদী হয়ে নিউমার্কেট থানায় মামলা দায়ের করেন। একটি বাসের চালক মোজহারুল ইসলাম ওরফে শাহ আলমকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মামলাটি তদন্ত করছেন নিউমার্কেট থানার এসআই মতিউর রহমান। তিনি সমকালকে জানান, মোজহারুল ইসলামকে

পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে গতকাল আদালতে পাঠানো হয়। অন্য চালককে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দাবি করে তানভীর বলেন, চালকের আগে যাওয়ার প্রতিযোগিতায় আমার সংসার তছনছ হয়ে গেল। আমার স্ত্রীর অচল হয়ে পড়লে আমার ছোট দুই মেয়েকে কে দেখবে। ছোট মেয়েটার বয়স মাত্র সাড়ে তিন বছর।