ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের দুই সেতুতে ফাটল সওজের নির্দেশ অমান্য চলছে ভারী যানবাহন

প্রকাশ: ০৮ আগস্ট ২০১৮

মোকলেছুর রহমান, ধামরাই (ঢাকা)

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের দুই সেতুতে ফাটল ধরার পর অতিরিক্ত ওজনের যানবাহন চলাচলে সড়ক ও জনপথ বিভাগের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করেই প্রতিদিন শত শত ভারী যানবাহন চলাচল করছে। এতে যে কোনো সময় সেতু দুটি ধসে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, দেশের ব্যস্ততম ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ধামরাই উপজেলা অংশে ষাটের দশকে নির্মাণ করা হয় ১৬টি সেতু। এর মধ্যে ধামরাইয়ের শ্রীরামপুর ও বারবারিয়া গাজীখালি নদীর ওপর নির্মিত দুটি সেতু দীর্ঘদিনেও মেরামত করা হয়নি। কয়েক যুগ মেরামত না করায় সেতু দুটিতে প্রায় এক বছর আগে বড় ধরনের ফাটল দেখা দেয়। শ্রীরামপুর এলাকার সেতুর চারটি বিমের মধ্যে দুটির বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে এবং বারবারিয়া সেতুতেও এক পাশে বড় ধরনের ফাটল দেখা দেওয়ার পর ওই পাশ দিয়ে কয়েক মাস আগেই সওজ বিভাগ যানবাহন চলাচল সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়। এরপর সেতু দুটির ধস ঠেকাতে ফাটলের নিচের অংশে বালুর বস্তা ও ইটের দেয়াল দিয়ে ঠেকা দেওয়া হয়। এ নিয়ে গত ২৪ এপ্রিল সমকালে সচিত্র সংবাদ প্রকাশের পর সড়ক ও জনপথ বিভাগ সেতু দুটির ওপর দিয়ে ট্রাক, লরি ও কাভার্ড ভ্যানসহ অতিরিক্ত ওজনের যানবাহন চলাচল নিষেধ করে সাইন বোর্ড ঝুলিয়ে দেয়। তবে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, সওজ বিভাগের নির্দেশ অমান্য করেই সেতু দুটির ওপর দিয়ে শত শত ভারী যানবাহন চলাচল করছে। এতে গত কয়েক দিন ধরে সেতুতে ফাটল আরও বেড়ে গেছে বলে এলাকাবাসী জানান।

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এসডিআইর নির্বাহী পরিচালক ও ধামরাইয়ের বাসিন্দা সামছুল হক বলেন, যে কোনো সময় সেতু দুটি ধসে পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। যেহেতু ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক খুবই ব্যস্ততম সড়ক। তাই দ্রুত যান চলাচলের বিকল্প রাস্তা তৈরি করা উচিত।

এদিকে অতিরিক্ত ওজনের গাড়ি নিয়ন্ত্রণ রাখতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ধামরাইয়ের বাথুলিতে বসানো হয়েছে এক্সেল লোড কন্ট্রোল স্টেশন। অভিযোগ রয়েছে, ওই কন্ট্রোল স্টেশনের দায়িত্বে থাকা কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করেই অতিরিক্ত ওজনের মাল বোঝাই ট্রাক-লরি চলাচল করছে। এভাবে ভারী যানবাহন চলাচল করতে থাকলে যে কোনো সময় সেতু দুটি ধসে মানুষের প্রাণনাশ হতে পারে বলে আশঙ্কা স্থানীয়দের।

এ ব্যাপারে ধামরাইয়ের ইসলামপুর-নয়ারহাট সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মো. আতিক উল্লাহ ভূঁইয়া বলেন, বাড়বাড়িয়া ও শ্রীরামপুরের দুটি সেতুতে বড় ধরনের ফাটল দেখা দেওয়ার পর পরই ধস ঠেকাতে সেতুর নিচের অংশে বালুর বস্তা ও ইটের দেয়াল দিয়ে ঠেকা দেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত ওজনের যানবাহন চলাচল নিষেধ করে সাইন বোর্ডও দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানোর পর ফাটল ধরা দুটিসহ ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের আরও কয়েকটি সেতু নতুন করে নির্মাণের প্রক্রিয়া চলছে।