জাদুঘরে রবীন্দ্র ও নজরুলবন্দনা

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

সমকাল প্রতিবেদক

জাতীয় জাদুঘরের দুটি মিলনায়তন; তৃতীয় তলায় প্রধান মিলনায়তন ও নিচতলায় সুফিয়া কামাল মিলনায়তন। তৃতীয় তলা থেকে ভেসে আসছিল কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গানের সুর। আর নিচতলায় ছিল নজরুলের সৃজনের সম্ভার। আগের দিন শুক্রবারের মতো গতকাল শনিবারও রাজধানীতে ছিল রবীন্দ্র ও নজরুলের প্রয়াণ দিবসের আয়োজন। জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সংস্থার উদ্যোগে আয়োজিত দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের শেষ ছিল গতকাল। আর সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে নজরুলসঙ্গীত সংস্থা আয়োজন করে 'তবু আমারে দেব না ভুলিতে' শীর্ষক সঙ্গীতানুষ্ঠান।

'অহংকার চূর্ণ করো/প্রেমে মন পূর্ণ করো' প্রতিপাদ্যে রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সংস্থার আয়োজনের দু'দিনের অনুষ্ঠানের সূচনা হয় 'সকাতরে ওই কাঁদিছে সকলে, শোনো শোনো পিতা' ও 'তোমার সুরের ধারা ঝরে যেথায়' গানের মধ্য দিয়ে। এর পর একক গান পরিবেশন করেন বিষ্ণু মণ্ডল, গোলাম হায়দার, শাফিকুর রহমান খান, খোকন চন্দ্র দাস, খন্দকার আবুল কালাম, মাখন হাওলাদার, আহমেদ জিয়াউর রহমান, সুবাহ্‌ আকবর, টিপু চৌধুরী, তপন কুমার সরকার, অভীক দেব, মিতা দে, রাবিতা সাবাহ, রমা বাড়ৈ, রুমঝুম বিজয়া রিসিল প্রমুখ। তাদের কণ্ঠে গীত হয় 'প্রভু আমার প্রিয় আমার', 'আষাঢ় কোথা হতে আজ পেলি', 'চোখের আলোয় দেখেছিলেম', 'দীর্ঘ জীবনপথ, কত দুঃখতাপ', 'মন মোর মেঘের সঙ্গী', 'কে বলে যাও, যাও, যাও আমার', 'আমার যা আছে আমি সকল', 'আমার এ পথ তোমার পথের থেকে', 'নয়ন ভাসিল জলে', 'আমার রাত পোহালো শারদ প্রাতে'সহ কবিগুরুর বিভিন্ন পর্যায়ের গান।

জাদুঘরের সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে বাংলাদেশ নজরুলসঙ্গীত সংস্থার আয়োজনের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য দেন সংস্থার সাধারণ সম্পাদক খায়রুল আনাম শাকিল। অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন জোসেফ কমল রড্রিক্স, সালাহউদ্দিন আহমেদ, ইয়াকুব আলী খান, সেলিনা হোসেন, কবির নাতনি খিলখিল কাজী, করিম হাসান খান, কল্পনা আনাম, মঈদুল ইসলাম, নাসিমা শাহীন ফ্যান্সি, শারমিন সাথী ইসলাম ময়না, রেজাউল করিম, বিজন চন্দ্র মিস্ত্রী প্রমুখ।