ভিকারুননিসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ পদে ফিরলেন হাসিনা বেগম

প্রকাশ: ১১ জানুয়ারি ২০১৯

বিশেষ প্রতিনিধি

রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক হাসিনা বেগম ফের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ পদে ফিরলেন। গতকাল বৃহস্পতিবার গভর্নিং বডির সভায় তাকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব ফিরিয়ে দেওয়া হয়।

এক মাস আগে হাসিনা বেগমকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দেওয়া হলেও সম্প্রতি তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিতে স্থায়ী অধ্যক্ষ নিয়োগে সহায়তা চেয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর ও বোর্ডকে চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্তও নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

গত ৩ ডিসেম্বর ভিকারুননিসার নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার পর অভিজাত এ প্রতিষ্ঠানটির নানা অনিয়ম গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। এর অন্যতম ছিল, কোনো পূর্ণকালীন অধ্যক্ষ ছাড়াই বছরের পর

খ্যাতনামা এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করা। এর পর নিয়মিত পূর্ণকালীন অধ্যক্ষ নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদ। অধ্যক্ষ নিয়োগে গত ৯ ডিসেম্বর বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে কর্তৃপক্ষ। পহেলা জানুয়ারি আবেদনের সময় শেষ হয়। তবে এ নিয়োগ প্রক্রিয়া 'বিধিসম্মত নয়' উল্লেখ করে ৭ জানুয়ারি তা বাতিল করতে নির্দেশ দেয় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর-মাউশি।

জানা গেছে, অধ্যক্ষ নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর গত ২ জানুয়ারি লিখিতভাবে এ নিয়োগের বিরোধিতা করেন অভিভাবক আবদুস সামাদ সুজন। তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়েও আবেদন করেন। পরে অধ্যক্ষ নিয়োগে নিষেধাজ্ঞা দেয় মাউশি। এর পর ভিকারুননিসা কর্তৃপক্ষ গতকাল সন্ধ্যায় সভা করে হাসিনা বেগমকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ পদে বহাল করে।

গভর্নিং বডির সভাপতি গোলাম আশরাফ তালুকদার বলেন, স্থায়ী অধ্যক্ষ না থাকায় শিক্ষা কার্যক্রম ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তাই সবার চাওয়া একজন স্থায়ী অধ্যক্ষ নিয়োগ। আমরা চেয়েছিলাম সরকারি আইন মেনে অধ্যক্ষ নিয়োগ দিতে। সে অনুযায়ী কার্যক্রমও চলেছে। যেহেতু ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হাসিনা বেগমও অধ্যক্ষ পদের জন্য একজন প্রার্থী ছিলেন, তাই নিয়োগের স্বচ্ছতার জন্য তাকে অব্যাহতি দিয়ে আরেকজনকে দায়িত্ব দেওয়া হয় গভর্নিং বডির সভায়। ওই সভাতেই সিদ্ধান্ত হয় যে, শিক্ষা মন্ত্রণালয় স্থায়ী অধ্যক্ষ নিয়োগ অনুমোদন না করলে হাসিনা বেগমকেই স্বপদে ফিরিয়ে আনা হবে। বৃহস্পতিবারের সভায় আমরা আগের সিদ্ধান্তই বাস্তবায়ন করেছি।

জানা যায়, ভিকারুননিসায় ২০১১ সালের জুলাইয়ের পর থেকে তিনজন অধ্যক্ষ দায়িত্ব পালন করলেও তাদের সবাই ছিলেন ভারপ্রাপ্ত। ওই বছরের ১৩ জুলাই শিক্ষক পরিমল জয়ধর ধর্ষণের কেলেঙ্কারির পর আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে অধ্যক্ষের পদ ছাড়তে হয়েছিল হোসনে আরা বেগমকে। তারপর ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্বে এসে ভারপ্রাপ্ত অবস্থাতেই ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে অবসরে যান মঞ্জু আরা বেগম। ফের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের ওপরই ভরসা রাখে স্কুলের পরিচালনা পর্ষদ। ওই বছরের ১২ ডিসেম্বর দায়িত্ব গ্রহণ করে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবেই ২০১৭ সালের জুলাইয়ে অবসরে যান শিক্ষক সুফিয়া খাতুন। এর পর বর্তমান কমিটির আমলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব পান নাজনীন ফেরদৌস; যাকে অরিত্রির মৃত্যুর পর আন্দোলনের মুখে বরখাস্ত করতে বাধ্য হয় বর্তমান কমিটি। গত ৮ ডিসেম্বর ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ পদে আসেন ভিকারুননিসার কলেজ শাখার সহকারী অধ্যাপক হাসিনা বেগম।

অভিভাবকরা বলেন, নিয়মিত অধ্যক্ষের বদলে অস্থায়ী অধ্যক্ষরা কমিটির প্রতি অধিক অনুগত হয় এবং কমিটির লোকজনের প্রতিষ্ঠানের ওপর 'খবরদারি' করতে সুবিধা হয়। মূলত এ কারণেই নিয়মিত অধ্যক্ষ নিয়োগ দেওয়া হয় না।