ফেনীতে চার তরুণী ধর্ষণে গ্রেফতার ২

প্রকাশ: ১১ জানুয়ারি ২০১৯

বিডিনিউজ

ফেনী শহরে চার তরুণীকে ছয় মাস ধরে আটকে রেখে দলবেঁধে ধর্ষণ-নির্যাতনের অভিযোগে দু'জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত বুধবার রাতে শহরের রামপুর এলাকার একটি বাড়ি থেকে তাদের উদ্ধার করা হয়। একই সময় নির্যাতনকারীদের দু'জনকে গ্রেফতার করা হয়।

আটককৃতরা হলো- আরিফুল ইসলাম ওরফে আরমান (৩৩) ও মো. ওমায়ের (১৯)। তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন উদ্ধার হওয়া এক তরুণী।

মামলার অভিযোগের বরাত দিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মো. শাহজাহান বলেন, কাওসার বিন কাসেম নামে এক ব্যক্তি এই তরুণীদের প্রেমের প্রলোভন দিয়ে নিয়ে আসে। তারপর কাওসার নিজে ও তার সহযোগীরা শহরের রামপুর এলাকার একটি বাসায় ছয় মাস ধরে আটকে রেখে তাদের ধর্ষণ করে। ধর্ষণে বাধা দেওয়ায় তাদের সিগারেটের আগুনের ছ্যাঁকা, বৈদ্যুতিক শক ও মারধর করে নির্যাতন চালানো হতো। তবে সোমবার ওই বাসার ভেতরে তরুণীদের কান্না ও চিৎকার শুনে

আশপাশের লোকজন পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এসআই শাহজাহান বলেন, অভিযানের সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাসার মালিকসহ নির্যাতনকারীরা পালিয়ে যায়। তিনি আরও বলেন, ওই বাসার বিভিন্ন কক্ষ থেকে ৫৩টি ইয়াবাসহ মাদক সেবনের বিভিন্ন সরঞ্জাম ও নির্যাতনের আলামত জব্দ করা হয়েছে।

ফেনী সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মো. আবু তাহের ধর্ষণের আলামত পাওয়ার কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, তরুণীদের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের আলমত পাওয়া গেছে। প্রতিবেদন পাওয়া গেলে বিস্তারিত জানা যাবে।

ফেনী সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শহীদুল ইসলাম বলেন, ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে বৃহস্পতিবার উদ্ধার চার তরুণীকে ফেনীর বিচারিক হাকিমের আদালতে উপস্থিত করা হয়। সেখানে তারা ২২ ধারায় জবানবন্দি দেন। আসামিদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা ছাড়াও মাদক উদ্ধারের ঘটনায়

থানায় পৃথক মামলা হয়েছে। মামলার প্রধান আসামি কাওসার বিন কাসেমকে গ্রেফতার করতে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে বলেও তিনি জানান।