নওগাঁয় আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশ

শীতবস্ত্র পেয়ে প্রাণ ফিরে পেল অসহায় মানুষ

প্রকাশ: ১১ জানুয়ারি ২০১৯     আপডেট: ১১ জানুয়ারি ২০১৯

নওগাঁ প্রতিনিধি

 শীতবস্ত্র পেয়ে প্রাণ ফিরে পেল অসহায় মানুষ

নওগাঁ সদর উপজেলায় কীত্তিপুর হাইস্কুল মাঠে বৃহস্পতিবার হতদরিদ্রদের মাঝে আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয় - সমকাল

উত্তরাঞ্চলে এবার তীব্র শীত অনুভূত হচ্ছে। সেইসঙ্গে বইছে শৈত্যপ্রবাহ। বিশেষ করে বরেন্দ্র অঞ্চলের সমতলভূমির পিছিয়ে পড়া ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মানুষরা রয়েছে দুর্ভোগে। শীতের কষ্ট লাঘবে এসব মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে আল-খায়ের ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশ। গতকাল বৃহস্পতিবার তাদের মধ্যে বিতরণ করা হয় গরম কাপড়। এর পরই যেন প্রাণ ফিরে পায় অসহায় মানুষরা।

গতকাল সকালে নওগাঁর কীর্তিপুর হাই স্কুল মাঠে জেলার সদর উপজেলার বর্ষাইল, বক্তারপুর ও কীর্তিপুর ইউনিয়নের ৩০০ হতদরিদ্র আদিবাসী ও দুস্থ মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়। আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশের যৌথ উদ্যোগে শীতবস্ত্র হিসেবে প্রত্যেককে একটি করে চাদর ও কম্বল তুলে দেওয়া হয়।

শীতবস্ত্র তুলে দেন নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন, আল-খায়ের ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর তারেক মাহমুদ সজীব, নওগাঁ ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ও জেলা সুহৃদ সমাবেশ কমিটির প্রধান উপদেষ্টা অধ্যাপক শরিফুল ইসলাম খান, সমকালের নওগাঁ প্রতিনিধি এম আর ইসলাম রতন, সমকাল সুহৃদ সমাবেশ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সেতু ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক আবদুল্লাহ আল রাফি সরোজ, কীর্তিপুর ইউপি চেয়ারম্যান আতোয়ার রহমান, কীর্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম, সাবেক প্রধান শিক্ষক আবদুস সামাদ, স্থানীয় সাংবাদিক সুলতানুল আলম মিলন, আল-খায়ের ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের প্রোগ্রাম অফিসার মনিকা নওশীন, ইস্তিয়াক হোসেন খান, মিডিয়া অফিসার মো. সেলিম, কীর্তিপুর স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আসাদুজ্জামান আসাদ, সুহৃদ রাশিদ আনজুম তন্ময়, আশরাফুল ইসলাম, তালহা, নুর নবী, নাঈমুর রহমান, মাসুম, মিজান, নাজমুল, তামিম আহমেদ, ইউশা আরাফ খান, শাফাত আজম, অলিন্দ কুমার সাহা, প্লাবন, মারুফ, নিলয়, সাজু ও মিশু।

কীর্তিপুর গ্রামের আদিবাসী গৃহবধূ গুলুবালা মুরমু বলেন, এর আগে আমরা কখনও এত সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে শীতবস্ত্র পাইনি। ভালো মানের গরম কাপড় আমাদের দেওয়া হয়েছে। এসব কাপড় টিকবেও অনেক দিন। শীতের কষ্ট থেকে এবার আমরা রক্ষা পেলাম।

বর্ষাইল ইউনিয়নের দীঘা গ্রামের বৃদ্ধ আজহার আলী মণ্ডল বলেন, শীতে কাবু ছিলাম, অনেক কষ্ট হচ্ছিল। স্বাভাবিক কাজকর্মও করা যাচ্ছিল না। আজ শীতের কাপড় পেয়ে যেন প্রাণ ফিরে পেলাম।

নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, তীব্র শীত থেকে মানুষকে বাঁচাতে, বিশেষ করে পিছিয়ে পড়া মানুষের পাশে এসে দাঁড়ানোর একটি মহতী উদ্যোগ নিয়েছে আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশ। এ জন্য তাদের আন্তরিক অভিনন্দন জানাই। তিনি বলেন, এ সংগঠন যে কম্বল বিতরণ করেছে, তা নিঃসন্দেহে চার-পাঁচ বছর ব্যবহার উপযোগী থাকবে। তাই আজ যারা কম্বল পেয়েছেন, আগামী দিনে তারা বঞ্চিতদের সুযোগ করে দেবেন। তিনি সরকারের পাশাপাশি অন্যান্য সংগঠন ও ব্যক্তিদের এমন উদ্যোগে যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানান।

আল-খায়ের ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর তারেক মাহমুদ সজীব বলেন, শীতবস্ত্র নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে পেরে নিজেদের ধন্য মনে করছি। এ প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান।

সমকাল সুহৃদ সমাবেশের জেলা কমিটির প্রধান উপদেষ্টা অধ্যাপক শরিফুল ইসলাম খান বলেন, সমকাল সুহৃদ সমাবেশ সব সময় সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ায়। তারা নানা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে এরই মধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। পাশাপাশি আজ আল-খায়ের ফাউন্ডেশন যে মহতী উদ্যোগ নিয়ে মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে, তার ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার প্রত্যাশা করেন তিনি।

কীর্তিপুর ইউপি চেয়ারম্যান আতোয়ার রহমান আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আজ তারা যে কাজ করছে, তা নিঃসন্দেহে একটি মহতী উদ্যোগ। তাদের মতো সমাজের ধনাঢ্য ব্যক্তি ও অন্যান্য সংগঠন এ কাজে এগিয়ে এলে দরিদ্র মানুষের দুর্ভোগ লাঘব হবে।