মৎস্যজীবীদের সংবাদ সম্মেলন

সাগরে নৌযান চলাচলে নতুন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার দাবি

প্রকাশ: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

চট্টগ্রাম ব্যুরো

২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত সাগরে সব ধরনের নৌযান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার দাবি জানিয়েছেন মৎস্যজীবীরা। এই সময়ে সাগরে যন্ত্রচালিত নৌকা না চললে মাছ ধরা সম্ভব হবে না। যা মৎস্যজীবীদের জীবনে কঠিন প্রভাব ফেলবে। গতকাল সোমবার চট্টগ্রামের ফিরিঙ্গি বাজার ফিশারি ঘাটে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানান তারা।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, এমনিতেই বিভিন্ন কারণে নিষেধাজ্ঞার কারণে বছরের বেশিরভাগ সময় তারা সাগরে মাছ ধরতে পারেন না। এর মধ্যে নতুন করে ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত সাগরে সব ধরনের নৌযান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আগে এই সময়ে সাগরে শুধু বড় ট্রলার চলাচল নিষিদ্ধ হতো। সেই সুযোগে যন্ত্রচালিত নৌকায় করে জেলেরা নির্বিঘ্নে মাছ ধরতে পারতেন। কিন্তু নতুন নিষেধাজ্ঞায় সব ধরনের নৌযানের চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। এতে স্বল্প আয়ের জেলেরাই মূল ভুক্তভোগী হবেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সামুদ্রিক মৎস্য আহরণকারী নৌকা মালিক সমিতির মহাসচিব আমিনুল হক সরকার বলেন, জাটকা নিধন বন্ধ রাখার জন্য বছরের ১ নভেম্বর থেকে ৩১ মে পর্যন্ত জেলেরা সরাসরি মাছ ধরতে পারেন না। আবার ইলিশের প্রজনন সময়ে সব ধরনের মাছ ধরাই বন্ধ থাকে। এ ছাড়া জাটকা নিধনের সাত মাস, ইলিশের প্রজননকালীন ২২ দিন ও বৈরী আবহাওয়ার কারণে আরও তিন মাস সাগরে মাছ ধরা বন্ধ থাকে। এরপর সরকার আবার নতুন করে নিষেধাজ্ঞার আওতায় ফেলেছে জেলেদের। এই সিদ্ধান্তের ফলে বড় ব্যবসায়ীদের তেমন কিছু না হলেও ছোট জেলেরা ক্ষতির মুখে পড়বেন।

সংবাদ সম্মেলনে জেলেরা বলেন, ইলিশের ভরা মৌসুমে ৬৫ দিন মাছ ধরা বন্ধ রাখলে জেলেদের ব্যাপক ক্ষতি হবে। তাই এই সময়ে আগের মতো যন্ত্রচালিত নৌকা চলাচলের অনুমতি দিতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে সামুদ্রিক মৎস্য আহরণকারী নৌকা মালিক সমিতির শীর্ষ নেতা ও সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।