আদালতে ঘাতক বাবার জবানবন্দি

পরকীয়ায় আসক্ত স্ত্রীকে শাস্তি দিতে সন্তান খুন

প্রকাশ: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

গাজীপুর প্রতিনিধি

 পরকীয়ায় আসক্ত স্ত্রীকে শাস্তি দিতে সন্তান খুন

রবিকুল ইসলাম

'বাবা আমার ভালো লাগতাছে না, আমি তোমার বুকে ঘুমাবো।' সাত বছরে কন্যা মনিরার এমন অনুরোধ ফেলতে পারেনি বাবা রবিকুল ইসলাম। দুপুরে খেয়েই রবিকুল একমাত্র কন্যাকে বুকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। বিকেল ৪টার দিকে হঠাৎ ঘুম ভেঙে দেখে কন্যা তার বুকেই ঘুমিয়ে আছে। আস্তে আস্তে মেয়েকে বুকের কাছ থেকে সরিয়ে মুখে রুমাল চেয়ে ধরে বাবা। মৃত্যু নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত ছোট্ট মনিরার নাকে-মুখে রুমালটি চেপে রাখা হয়। শ্রীপুর পৌরসভার কেওয়া পূর্বখণ্ড গ্রামের রবিকুল ইসলাম আদালতের কাছে এভাবেই নিজ কন্যাকে হত্যার বর্ণনা দেয়। গতকাল সোমবার দুপুরে গাজীপুরের বিচারিক হাকিম শামীমা আক্তার ১৬৪ ধারায় এ জবানবন্দি রেকর্ড করেন। পরকীয়ায় আসক্ত স্ত্রীকে শাস্তি দিতেই নিজ হাতে সন্তানকে হত্যা করে বলে আদালতকে জানিয়েছে রবিকুল।

আদালতে দেওয়া রবিকুলের জবানবন্দি উদ্ৃব্দত করে শ্রীপুর থানার ওসি জাবেদুল ইসলাম জানান, স্বামী-স্ত্রী দু'জনই পোশাক কারখানার শ্রমিক। ২০১২ সালে তাদের বিয়ে হয়। এর আগে স্ত্রী নাছরিনের দুটি বিয়ে হয়েছিল। তবে সে বিষয়টি গোপন রেখে রবিকুলকে তৃতীয় বিয়ে করেন নাছরিন। তার সঙ্গে সংসার করার সময়ও নাছরিন অন্য এক যুবকের সঙ্গে পরকীয়ায় লিপ্ত হয়ে পড়েন। এ কারণে বছরখানেক আগে রবিকুলকে তালাক দিয়ে মেয়েকে নিয়ে চলে যান নাছরিন। পরে রবিকুল অনুনয়-বিনয় করে আবার নাছরিনকে ঘরে তুলে আনে। কিন্তু অন্য যুবকের সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রেখে চলেন নাছরিন। বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি রবিকুল। এ নিয়ে  তাদের মধ্যে প্রায়ই মারামারি ও ঝগড়া হতো। গত শুক্রবার দুপুরে বাসায় মিলাদের আয়োজন করেন তারা। নাছরিন তার দুই বন্ধুকে নিজ হাতে তুলে খাওইয়ে দেয়। এতে রবিকুল ভেতরে ভেতরে ফুঁসতে থাকে। এ ঘটনা নিয়ে শনিবার রাতেও দু'জনের মধ্যে মারামারি হয়।

ওসি আরও জানান, রোববার সকালে রান্নাবান্না শেষ করে কন্যা মনিরাকে স্কুলে দিয়ে কাজে চলে যান নাছরিন। রবিকুল বাসাতেই থেকে যায়। দুপুরের বিরতির সময় বাসায় ফিরে নাছরিন স্বামী-সন্তানকে নিয়ে খাবার খেয়ে আবার কাজে চলে যান। এ সময় রবিকুল তার কন্যাকে বুকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে স্ত্রী নাছরিনকে শাস্তি দিতে কন্যাকে হত্যার সিদ্ধান্ত নেয় সে। কন্যাকে হত্যার পর স্ত্রীকে টেলিফোন করে রবিকুল বলে- 'থাক এবার শান্তিতে, আমারে আর তোর মাইয়ারে আর কোনোদিন পাবি না।'

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান বলেন, শিশু মনিরাকে ঘটনার কয়েকদিন আগে স্থানীয় হাজী মোহাম্মদ আলী কিন্ডারগার্টেনের প্লে শ্রেণিতে ভর্তি করে দেওয়া হয়েছিল। রোববার পোশাক কারখানা থেকে বাসায় ফিরে কন্যাকে খুঁজে না পেয়ে পুলিশে খবর দেন নাছরিন। পরে পুলিশ গিয়ে তাদের বসতঘরের খাটের নিচে সিলভারের একটি পাতিলের ভেতর থেকে শিশুটির মৃতদেহ উদ্ধার করে। ওই ঘটনায় গতকাল ভোরে জয়দেবপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে পলাতক রবিকুলকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে দুপুরে আদালতে হাজির করা হলে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে সন্তানকে হত্যার কথা স্বীকার করে সে।