শাশুড়িকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ দিলেন গৃহবধূ

ঘাতক দেবর পলাতক

প্রকাশ: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

পারিবারিক কলহের জেরে মা হামিদা বেগমের সঙ্গে তর্কে জড়িয়েছিল শফিকুল ইসলাম। একপর্যায়ে মাকে ছুরি দিয়ে আঘাত করে সে। রক্তাক্ত মা ঘরের মেঝেতে পড়ে থাকলে চিৎকার দেন পুত্রবধূ শারমিন আক্তার। পালানোর চেষ্টা করলে তিনি জাপটে ধরেন দেবর শফিকুলকে। এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে শারমিনকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যায় ঘাতক দেবর। সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর দক্ষিণখানের টিএসি কলোনির একটি বাসায় এ ঘটনা ঘটে।

ঘাতক শফিকুলের আহত মা হামিদা বেগমকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আর ভাবি শারমিন আক্তারের মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। নিহতের দুটি শিশুসন্তান রয়েছে।

নিহত শারমিনের স্বামী বিপ্লব জানান, ঋণ করে শফিকুলকে ইতালি পাঠানো হয়েছিল। এক বছরের মাথায় সে দেশে চলে আসে। এর পর দেশে বিভিন্ন ব্যবসা করে দিলেও তাতে লোকসান করে সে। এতে তাদের ঋণের পরিমাণ বাড়তে থাকে। কিছুদিন ধরে শফিকুল নতুন করে ব্যবসার জন্য মায়ের কাছে টাকা দাবি করছিল। গতকাল ওই টাকা চাওয়া নিয়েই ঝগড়া হচ্ছিল। একপর্যায়ে শফিকুল মাকে ছুরি দিয়ে আঘাত করে। ঠেকাতে গেলে শারমিনকেও আঘাত করে সে। পরে সেখান থেকে পালিয়ে যায়। ঘটনার সময়ে তিনি বাসায় না থাকলেও খবর পেয়ে বাসায় ফিরে দু'জনকে রক্তাক্ত অবস্থায় পান।

দক্ষিণখান থানার ওসি তপন চন্দ্র সাহা বলেন, পারিবারিক কলহের কারণে এ খুনের ঘটনা ঘটেছে। শাশুড়িকে রক্ষা করতে গিয়ে প্রাণ দিয়েছেন গৃহবধূ শারমিন। শাশুড়ি হামিদা বেগমের অবস্থাও সংকটাপন্ন। ঘটনার পর থেকে পলাতক শফিকুলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।