ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির সমাবর্তনে শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষার মানোন্নয়নে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে মনোযোগী হতে হবে

প্রকাশ: ১৪ মার্চ ২০১৯

সমকাল প্রতিবেদক ও নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, একটি শিক্ষিত জাতি তৈরিতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভূমিকা অনন্য। কিন্তু অনেক

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন না মানার প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এটি কখনও কাম্য নয়। উচ্চশিক্ষার মানোন্নয়নে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে মনোযোগী হতে হবে।

গতকাল বুধবার ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির (ডিআইইউ) অষ্টম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। সাভারের আশুলিয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাসে এ সমাবর্তন অনুষ্ঠান হয়। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের প্রতিনিধি হিসেবে সভাপতিত্ব করেন শিক্ষামন্ত্রী।

দীপু মনি বলেন, একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য প্রযুক্তিতে দক্ষ হওয়া ছাড়া উপায় নেই। ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় তরুণ প্রজন্মকে তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ করে গড়ে তুলছে। ডাকসু নির্বাচন প্রসঙ্গে দীপু মনি বলেন, ২৮ বছর পর হলেও ডাকসু নির্বাচন হওয়ায় আমরা আনন্দিত। এতে শিক্ষার্থীরা গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের চর্চা করতে পারবেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান। সমাবর্তন বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেন থাইল্যান্ডের সিয়াম ইউনিভার্সিটির প্রেসিডেন্ট ড. পর্নচাই মঙ্গখোনভানিত। অন্যদের মধ্যে ডিআইইউর ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান সবুর খান, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইউসুফ মাহবুবুল ইসলাম, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এসএম মাহবুব উল হক মজুমদার বক্তব্য দেন। শিক্ষার্থীদের পক্ষে ভ্যালিডেকটোরিয়ান বক্তব্য দেন আইন বিভাগের সাইফুল ইসলাম।

এবারের সমাবর্তনে পাঁচ হাজার ৬৩১ জন গ্র্যাজুয়েটকে ডিগ্রি প্রদান করা হয়। এ ছাড়া কৃতিত্বপূর্ণ ফল অর্জনকারী ১৭ জন গ্র্যাজুয়েটকে স্বর্ণপদক প্রদান করেন শিক্ষামন্ত্রী।

গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশে সমাবর্তন বক্তা পর্নচাই বলেন, সারা পৃথিবীতে বেকারত্ব সমস্যা প্রকট হচ্ছে। তুমি যত উচ্চশিক্ষিত হবে, বেকার হওয়ার সম্ভাবনা তত বেশি। এ অবস্থায় তোমাদের উচিত, উদ্যোক্তা হওয়া। তোমরা যদি উদ্যোক্তা হও, তাহলে অনেক বেকারের কর্মসংস্থান করতে পারবে। এ সময় তিনি শিক্ষার্থীদের সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতার কথা স্মরণ করিয়ে দেন।