গরমে রোগ-ব্যাধি ও করণীয়

প্রকাশ: ১৫ মার্চ ২০১৯      

ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ

ডিন, মেডিসিন অনুষদ

অধ্যাপক, মেডিসিন বিভাগ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়

গরম সমাগত। গরমের শুরুতে নতুন কিছু রোগ-ব্যাধির প্রাদুর্ভাব ঘটে। এসব রোগ-ব্যাধির কারণ ও এর প্রতিকার সম্পর্কে আগে থেকে জানা থাকলে অনেক ক্ষেত্রেই তা প্রতিরোধ করা সম্ভব। একেকটি ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে আবহাওয়ার বেশ কিছু পরিবর্তন হয়। আবহাওয়ার এই পরিবর্তনে রোগ সৃষ্টিকারী বিভিন্ন অণু-জীবাণুর বংশবৃদ্ধি ও মানবদেহে রোগ সৃষ্টিতে ভিন্নমাত্রা যোগ হয়। তাপমাত্রার পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে শরীরের অভ্যন্তরীণ কিছু পরিবর্তন হয়। এই সার্বিক পরিবর্তনের ফলে বিভিন্ন ঋতুতে বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব লক্ষ্য করা যায়। গরমে বা তাপমাত্রা বৃদ্ধিতে মানুষ প্রধানত দুইভাবে আক্রান্ত হয়। অতি তাপমাত্রাজনিত সমস্যা ও জীবাণু

সংক্রমণজনিত রোগ। চার বছরের কমবয়সী শিশু, ৬০ বছরের বেশি বয়সী মানুষ, বেশি মোটা এবং বিভিন্ন রোগ আক্রান্ত ব্যক্তিরা অতি তাপজনিত সমস্যার ঝুঁকিতে থাকেন। এগুলোর মধ্যে অন্যতম অধিক ঘামজনিত পানিস্বল্পতা, রক্তে লবণের মাত্রা কমে যাওয়া, অতি দুর্বলতা, হাত-পা কামড়ানো, মাথা ব্যথা, মাথা ঘোরানো ও বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া। এছাড়া অতি তাপে হিট স্ট্রোক বা খিঁচুনি থেকে অজ্ঞান হয়ে মানুষের মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। বিভিন্ন চর্মরোগ, যেমন ঘামাচি, চামড়ায় ফোস্কা পড়া, লাল হয়ে যাওয়া, চুলকানির মতো সমস্যাও হতে পারে।

এছাড়া গরমে বিশেষ করে সর্দি, কাশি, ভাইরাল জ্বর, ইনফ্লুয়েঞ্জা, ডেঙ্গু, হাম, বসন্ত, টাইফয়েড, ডায়রিয়া, জন্ডিস, মেনিনজাইটিস, এনসেফালাইটিস রোগ হয়ে থাকে। এর মধ্যে সর্দি, কাশি এবং ভাইরাসজনিত জ্বরের হার সবচেয়ে বেশি। কারও কারও বা সর্দির সমস্যা থাকলে তা বেড়ে ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। সাধারণ আমাশয় এবং রক্ত আমাশয় বেড়ে যেতে পারে। দূষিত পানি ও খাদ্য থেকে কলেরার প্রকোপ বাড়তে পারে।

এসব রোগ প্রতিরোধে পর্যাপ্ত এবং প্রয়োজনে প্রচুর জীবাণুমুক্ত পানি পান করতে হবে। চিনিযুক্ত পানি, কোমল পানীয় ও অতি ঠাণ্ডা পানি বর্জন করতে হবে। কারণ এক্ষেত্রে ঘাম বেড়ে গিয়ে পানিস্বল্পতা দেখা দিতে পারে। অতি গরমে ছায়াযুক্ত স্থান অথবা ঘরের মধ্যে অবস্থান করুন। বেশি ঘেমে গেলে পানি দিয়ে শরীর মুছে ফেলুন অথবা গোসল করে ফ্যান ছেড়ে শরীর শুকিয়ে ফেলুন। হালকা ও সুতি জামা পরিধান করুন। রোদের মধ্যে পরিশ্রম না করে সকালে বা বিকেলে স্বল্প সময়ে কাজ সেরে ফেলুন। বেশি ঘাম হলে লবণযুক্ত শরবত পান করুন। এক্ষেত্রে খাবার স্যালাইন খাওয়া যেতে পারে। এছাড়া গরমের অন্যান্য রোগ প্রতিরোধের জন্য ফোটানো এবং বিশুদ্ধ পানি পান করুন। ফুটপাতের খোলা জায়গার খাবার খাবেন না। ধুলাবালিতে মাস্ক ব্যবহার করুন। সর্দি বা কাশির শুরুতেই ডাক্তারের কাছ থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করুন। বসন্ত আক্রান্ত রোগীদের থেকে দূরে থাকুন। ডায়রিয়া আক্রান্ত হলে পর্যাপ্ত স্যালাইন পানি পান করুন এবং তিন দিনে জ্বর না কমলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে।