'বন্দুকযুদ্ধ' কুমিল্লায় মাদক ব্যবসায়ী, সাভারে ডাকাত নিহত

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা ও সাভার

কুমিল্লা ও সাভারে পৃথক 'বন্দুকযুদ্ধে' এক মাদক ব্যবসায়ী, এক ডাকাতসহ দু'জন নিহত হয়েছে। সোমবার রাতে এসব ঘটনা ঘটে। জানা যায়, কুমিল্লায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে বাপ্পী ওরফে রাজিব (২৬) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। এ সময় পুলিশের তিন সদস্য আহত হন।

জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার উত্তর বিজয়পুর এলাকায় হোসেনপুর-লালমতি সড়কের মিল গেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বাপ্পী একই উপজেলার উত্তর রামপুর এলাকার মৃত দেলোয়ার হোসেন দেলুর ছেলে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি ক্রিজ, একটি রামদা ও এক হাজার ২০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে।

পুলিশ জানায়, সোমবার রাত আড়াইটার দিকে উত্তর বিজয়পুর এলাকায় মাদক উদ্ধারে অভিযান পরিচালনা করে সদর দক্ষিণ মডেল থানা পুলিশ। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ী বাপ্পী ও তার সহযোগীরা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এ সময় পুলিশ আত্মরক্ষার্থে গুলি ছোড়ে। এক পর্যায়ে

বাপ্পী গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সদর দক্ষিণ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কমল কৃষ্ণ ধর জানান, নিহত বাপ্পী পুলিশের তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে মাদক আইনে থানায় ১১টির অধিক মামলা রয়েছে।

এদিকে সাভারের দু'দল ডাকাতের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় এক ডাকাত নিহত হয়েছে। বাইপাইল-আব্দুল্লাহপুর সড়কের মরাগাং এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল ও কয়েক রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে। পরে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে।

আশুলিয়া থানার এসআই মিরাজ হোসেন বলেন, দু'দল ডাকাতের মধ্যে গুলি বিনিময়ের খবর পেয়ে মরাগাং এলাকায় যাই। পরে সেখান থেকে গুলিবিদ্ধ এক ব্যক্তিকে উদ্ধার করে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. মাসুদ বলেন, ভোরে পুলিশ এক ব্যক্তিকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসে। এ সময় তার বুকে ক্ষতচিহ্ন দেখা গেছে। কিন্তু সেটি গুলি কি-না তা ময়নাতদন্তের রিপোর্টে জানা যাবে।

আশুলিয়া থানার ওসি শেখ রিজাউল হক দিপু জানান, ডাকাতের মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় আশুলিয়া থানায় একটি মামলা করে নিহতের নাম-পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।