ফেরদৌসের ভিসা বাতিলের যুক্তি নেই :মমতা

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৯

সমকাল ডেস্ক

অন্য দেশের নাগরিক হয়ে লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে অংশ নেওয়ার অভিযোগে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র তারকা ফেরদৌস আহমেদের ভিসা বাতিল ও তাকে 'কালো তালিকাভুক্ত' করেছিল ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। অবশেষে সেই প্রসঙ্গে মুখ খুললেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি ফেরদৌসের নাম উল্লেখ না করে বলেছেন, ওই ভিসা বাতিলের কোনো যুক্তিই নেই।

সোমবার কলকাতায় রাজ্য সচিবালয় নবান্নে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন মমতা। সূত্র :বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল দলের প্রধান মমতা বলেন, ভোটের সময় বাংলাদেশ থেকে আমাদের একজন

বন্ধু এসেছিলেন। তৃণমূলের মিছিল দেখে তিনি রাস্তায় দাঁড়িয়ে পড়েছিলেন। ব্যাস, অমনি তার ভিসা বাতিল করে দেওয়া হলো। এটা কেমন কথা? তার ভিসা বাতিলের কোনো যুক্তিই নেই।

মমতা অভিযোগ করেন, লোকসভা ভোটের প্রচারের জন্য ওরা (বিজেপি) বাংলাদেশ থেকে কাদের নিয়ে এসেছিল, এই রাজ্যে কী করিয়েছিল সেটা বরং আপনারা খোঁজ নিন। মনে রাখবেন, অনুপ্রবেশ শুধু মাইনরিটিরা (মুসলিমরা) করে না, অন্যরাও করে। তাদের কারা ঢোকাল সেটাও আপনারা দেখুন।

গত ১৪ ও ১৫ এপ্রিল ভারত সফরে গিয়ে রায়গঞ্জের তৃণমূল প্রার্থী কানহাইয়ালাল আগরওয়ালের হয়ে কলকাতার চলচ্চিত্র শিল্পীদের সঙ্গে ভোটের প্রচারে দেখা গেছে ফেরদৌসকে। ওই মিছিলের ছবি ভাইরাল হয়ে পড়ে এবং বিজেপির নেতারা নির্বাচনী আইন ভঙ্গের অভিযোগ তোলেন। এরপরই তাকে ভারতে 'কালো তালিকাভুক্ত' করা হয়। একই ধরনের অভিযোগ ওঠে আরেক অভিনেতা গাজী আবদুন নুরের বিরুদ্ধেও। এ নিয়ে সমালোচনা করেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি স্বয়ং। ভিসা বাতিলের এ ঘটনার পর ফেরদৌস দেশে ফিরে দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন। ওই ঘটনার প্রায় দুই মাস পর প্রসঙ্গটি তুললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা।

ফেরদৌসের ভিসা বাতিলের পর তিনি পশ্চিমবঙ্গে যেসব চলচ্চিত্রের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন, সেগুলোর শুটিং অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে। মমতার এ বিবৃতির পর অনেকেই ধারণা করছেন, ফেরদৌসের ভিসা যাতে পুনর্বহাল করা হয়, সেজন্য পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হয়তো এবার বিজেপির কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে টক্কর দিতেও প্রস্তুত।