ঈদ ভিজবে বৃষ্টিতে!

প্রকাশ: ০৪ জুন ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

পবিত্র ঈদুল ফিতরে দেশব্যাপী বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। অবশ্য সকালের দিকে বৃষ্টি হলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তা কমে গিয়ে বিকেলের দিকে আকাশ পরিস্কার হবে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আজ মঙ্গলবার থেকেই রাজধানীতে বৃষ্টির পরিমাণ বাড়তে থাকবে।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৫ বা ৬ জুন ঈদুল ফিতর। ২৯ রোজা হলে ৫ জুন এবং রোজা ৩০টি হলে ৬ জুন ঈদ উদযাপিত হবে। আবহাওয়ার পূর্বাভাস অনুযায়ী, ঈদের দিন রাজশাহী ও রংপুর বিভাগ ছাড়া দেশের অন্যান্য অঞ্চলে হালকা অস্থায়ী দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

দীর্ঘ তিন সপ্তাহের তীব্র তাপদাহের পর কয়েকদিন ধরে দেশের বিভিন্ন এলাকায় কমবেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে। কাঙ্ক্ষিত এ বৃষ্টি আপাতত স্বস্তি এনে দিলেও ঈদযাত্রায় দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন

স্থানে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হচ্ছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সাম্প্রতিক তথ্য-উপাত্ত বিশ্নেষণ করে দেখা যাচ্ছে, লঘুচাপের প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা সৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে। লঘুচাপের বর্ধিতাংশ বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল হয়ে পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। এর ফলে রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, ঢাকা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং খুলনা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি টানা কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে।

লঘুচাপের সঙ্গে শুরু হয়েছে বর্ষা মৌসুমও। এ বছর যথাসময়ে অর্থাৎ জুনের প্রথম সপ্তাহে বর্ষার মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশ উপকূলে এসেছে। এর প্রভাবে বৃষ্টি হচ্ছে দেশের বিভিন্ন এলাকায়। ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস বলছে, এ বছর মৌসুমি বায়ু কেরালা উপকূল দিয়ে ভারতে প্রবেশ করেছে। আজ পশ্চিমবঙ্গে বর্ষার বৃষ্টি হতে পারে।

এখন থেকে প্রতিদিনই বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কয়েক দিনের চেয়ে আজ বৃষ্টিপাতের পরিমাণ আরও বাড়বে। বিশেষ করে রাজধানীসহ দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের জেলা চট্টগ্রাম, পূর্বাঞ্চলের সিলেট ও উত্তরাঞ্চলে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বেশি হতে পারে। গতকাল সারা দিন রাজধানীসহ দেশের বেশির ভাগ এলাকায় বৃষ্টি হয়েছে। এ সময় কালবৈশাখী আঘাত হেনেছে রাজধানীসহ দেশের অনেক এলাকায়। রাজধানীতে গত শনিবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে গতকাল সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ৪৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান বলেন, মৌসুমি বায়ু ভারত মহাসাগরের আন্দামান দ্বীপপুঞ্জ অতিক্রম করে বাংলাদেশের কাছাকাছি বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। এর প্রভাবে সারাদেশে বৃষ্টি হচ্ছে। এই বৃষ্টি আগামী কয়েক দিন চলতে পারে। ঈদের দিনও বৃষ্টি থাকার সম্ভাবনা আছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, ময়মনসিংহ, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও সিলেট অঞ্চলের ওপর দিয়ে পশ্চিম অথবা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি কিংবা বজ্রবৃষ্টিসহ ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এ কারণে এসব এলাকার নদীবন্দরগুলোকে ২ নম্বর নৌ-হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। দেশের অন্যান্য এলাকায় পশ্চিম অথবা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি কিংবা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এ সব এলাকার নদীবন্দরগুলোকে ১ নম্বর সতর্কসংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।