খুলনায় বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটারে চরম ভোগান্তি

প্রকাশ: ০৯ জুন ২০১৯      

খুলনা ব্যুরো

খুলনায় বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটারে গ্রাহকদের ভোগান্তি এখন চরমে। ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ওজোপাডিকো) প্রিপেইড মিটার ফ্রি দেওয়ার কথা বলে এখন গ্রাহকদের কাছ থেকে মিটারের মূল্য আদায় করছে। মিটারের মূল্য বাবদ মোট কত টাকা নেওয়া হবে, তাও গ্রাহকদের জানানো হয়নি। 'প্রিপেইড মিটার নিয়ে জনমনে ক্ষোভ, সমাধানে ওজোপাডিকোর নেই কোনো উদ্যোগ' শীর্ষক মতবিনিময় সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন 'জনউদ্যোগ' গতকাল শনিবার দুপুরে নগরীর বিএমএ মিলনায়তনে এ সভার আয়োজন করে।

সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন জাতীয় তেল-গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির নেতা রুহিন হোসেন প্রিন্স। সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) খুলনার সভাপতি ডা. শেখ বাহারুল আলম। সঞ্চালনা করেন জনউদ্যোগ-এর সদস্য সচিব মহেন্দ্রনাথ সেন।

বক্তারা অভিযোগ করেন, প্রিপেইড মিটার স্থাপনের পর তা গ্রাহকদের টাকা কাটছে বেশি। মিটারের কার্ড সহজে পাওয়া যায় না। কার্ড রিচার্জ প্রক্রিয়াও অনেক জটিল। কার্ডের টাকা শেষ হয়ে গেলে বিদ্যুৎ অফ হয়ে যাচ্ছে। অথচ আগে মাস শেষে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে হতো। সে ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ অফ হয়ে যাওয়া নিয়ে কোনো দুশ্চিন্তা ছিল না। বক্তারা বলেন, প্রতি মাসে মিটারে কার্ড রিচার্জ করার সময় মিটারের মূল্য বাবদ ৪০ টাকা কেটে নেওয়া হচ্ছে। বাড়ির মালিকরা এ টাকা দিচ্ছেন না; দিতে হচ্ছে ভাড়াটিয়াদের। ওজোপাডিকোর অনেক কর্মকর্তার বাড়িতে এখনও প্রিপেইড মিটার না বসানোই প্রমাণ করে- এ মিটারে অসঙ্গতি আছে।

সভায় প্রধান আলোচক রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, সার্বিক বিষয়ে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনকে (বিইআরসি) চিঠি দেওয়া, ভোক্তা অধিকার কমিটি ও বিইআরসি কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে খুলনায় গণশুনানিসহ প্রয়োজনে  আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে খুলনাসহ পদ্মার এপারের ২১ জেলার বিদ্যুৎ গ্রাহকদের অধিকার নিশ্চিত করা হবে।

সভার সভাপতি ডা. শেখ বাহারুল আলম এ বিষয়ে বিস্তারিত মতামত জানতে আগামী সোমবার বেলা ১১টায় বিএমএ মিলনায়তনে পরবর্তী সভা আহ্বানের কথা উল্লেখ করেন। তিনি ওই সভায় খুলনার বিদ্যুৎ গ্রাহক, নাগরিক নেতা এবং বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃৃতিক সংগঠনের প্রতিনিধিদের উপস্থিত থাকার আহ্বান জানান।

মতবিনিময় সভায় বক্তৃতা করেন খুলনা নাগরিক সমাজের সভাপতি অ্যাডভোকেট আ ফ ম মহসীন, খুলনা উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি শরীফ শফিকুল হামিদ চন্দন, বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির নেতা শেখ মহিউদ্দিন ও শাহীন জামাল পন, সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শাহজাহান পারভেজ, মহানগর জাসদের সাধারণ সম্পাদক খালিদ হোসেন, খুলনা টিভি রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মামুন রেজা, নিরাপদ সড়ক চাই-নিসচার জেলা সাধারণ সম্পাদক এসএম ইকবাল হোসেন বিপ্লব, নাগরিক নেতা মাসুদ মাহমুদ, আবদুল হালিম, সৈয়দ ইমাম হোসেন বাচ্চু, সেলিম বুলবুল, শরীফুল ইসলাম সেলিম, আইনুল হক, জেসমিন জামান, শাহ লায়েকুজ্জামান, জিএম রাসেল ইসলাম, ইসরাত আরা হীরা, মাহবুবুল আলম বুলবুল, জিয়াউর রহমান স্বাধীন, খুলনা প্রেস ক্লাবের সাবেক কোষাধ্যক্ষ এইচএম আলাউদ্দিন, সাংবাদিক ইয়াসিন আরাফাত রুমি প্রমুখ।

এদিকে ওজোপাডিকোর প্রিপেমেন্ট মিটারিং সিস্টেম ফর খুলনা সিটি প্রকল্পের পরিচালক শহীদুল আলম সমকালকে বলেন, গ্রাহকদের অভিযোগ সঠিক নয়। সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতি মাসে মিটারের মূল্য বাবদ ৪০ টাকা কাটা হচ্ছে। বিদ্যুৎ অফিস ও ভেন্ডিং স্টেশনগুলোতে প্রিপেইড কার্ড পাওয়া যায়। আগের মিটারের তুলনায় এ মিটারে অতিরিক্ত কোনো টাকা কাটে না। এটা গ্রাহকদের বোঝার ভুল।