মা-বাবা কেউ রইল না আহাদের

প্রকাশ: ০৯ জুন ২০১৯      

পাবনা অফিস ও ঈশ্বরদী প্রতিনিধি

মা-বাবা কেউ রইল না আহাদের

আহত শিশু আহাদ

ঈদের আনন্দ সারাজীবনের জন্য মৃত্যু বিভীষিকা হয়ে রইল ছয় মাসের শিশু আহাদের জীবনে। সড়ক দুর্ঘটনায় শুক্রবার মা মারিয়াকে হারানোর পর গুরুতর আহত বাবা ওয়াহেদ আলীও চলে গেলেন না ফেরার দেশে। গতকাল শনিবার ভোরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ  হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান একই দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত ওয়াহেদ আলী।

এর আগে শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে স্ত্রী মারিয়া ও একমাত্র শিশুসন্তান আহাদকে নিয়ে মোটরসাইকেলে ঈশ্বরদী উপজেলার মিরকামারী থেকে ছলিমপুর গ্রামে শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছিলেন ওয়াহেদ আলী। পথে দাশুড়িয়া-পাকশী বিশ্বরোডের জয়নগরের তামান্না ফিলিং স্টেশনের কাছে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হন তারা। ফিলিং স্টেশন থেকে তেল নেওয়ার জন্য রাস্তা পার হওয়ার সময় অন্য দুটি মোটরসাইকেল দ্রুতবেগে এসে তাদের ধাক্কা দিলে তিনজনই ছিটকে পড়েন। এ সময় পাকশীগামী একটি মাইক্রোবাস এসে চাপা দিলে মারিয়া ঘটনাস্থলেই নিহত হন।

দুর্ঘটনায় আহত ওয়াহেদ ও শিশুসন্তান আহাদকে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। ওয়াহেদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানেই শনিবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

পাকশী হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ রাজিবুল আলম জানান, মাইক্রোবাসটিকে আটক করতে না পারলেও মোটরসাইকেল আরোহী শাকিল (২০) এবং সোহেলকে (২২) আহত অবস্থায় আটক করা হয়েছে। শিশু আহাদ বর্তমানে আশঙ্কামুক্ত। ঈশ্বরদী থানার ওসি বাহাউদ্দিন ফারুকী জানান, শিশু আহাদ এখনও হাসপাতালে রয়েছে। সুস্থ হলে তাকে উপযুক্ত অভিভাবকের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হবে।