জাতিসংঘে সেনাপ্রধানের ব্যস্ত সময় শান্তিরক্ষা মিশনের গুরুত্বপূর্ণ পদে বাংলাদেশকে নির্বাচন

প্রকাশ: ১১ জুলাই ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্র সফররত সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ জাতিসংঘ সদর দপ্তরের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। তিনি জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে পৌঁছলে স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন তাকে স্বাগত জানান। পরে সেনাপ্রধান মহাসচিবের সামরিক উপদেষ্টা লেফটেন্যান্ট জেনারেল কার্লোস উমবার্তো লতের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সামরিক উপদেষ্টা বিভিন্ন জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের পেশাদারিত্ব ও মানবিক কর্মকাণ্ডের ভূয়সী প্রশংসা করেন। এ ছাড়া তিনি বিশ্ব শান্তিরক্ষায় বাংলাদেশ সরকারের স্বতঃস্ম্ফূর্ত সহায়তার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। সেনাপ্রধান বাংলাদেশ থেকে একজন ফোর্স কমান্ডার নিয়োগের প্রস্তাবনা দেন। সামরিক উপদেষ্টা শিগগির এ ব্যাপারে পদক্ষেপের আশ্বাস দেন। সেনাপ্রধান বাংলাদেশ থেকে অতিরিক্ত ইঞ্জিনিয়ারিং, মেডিকেল, স্পেশাল ফোর্স এবং র‌্যাপিডলি ডেপ্লয়েবল ব্যাটালিয়ন মোতায়েনেরও প্রস্তাবনা দিয়েছেন। এ সময় সামরিক উপদেষ্টা সেনাপ্রধানকে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে একজন কর্নেল পদমর্যাদার কর্মকর্তাকে শান্তিরক্ষা মিশনের ফোর্স জেনারেশন প্রধান হিসেবে নিয়োগপত্র হস্তান্তর করেন। ৩১ বছর শান্তিরক্ষা মিশনে অংশগ্রহণে এই প্রথম গুরুত্বপূর্ণ এ পদে বাংলাদেশকে নির্বাচন করা হলো। পাশাপাশি সামরিক উপদেষ্টা রোহিঙ্গা নাগরিকদের সহায়তার জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসা করেন। এরপর সেনাপ্রধান অ্যাসিসট্যান্ট সেক্রেটারি জেনারেল ডিপার্টমেন্ট অব অপারেশনাল সাপোর্ট লিসা এম বাটেনহেইমের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এ সময় সেনাপ্রধান জাতিসংঘ সদর দপ্তরের কাছে বাংলাদেশ সরকারের অন্তত ৫০০ কোটি টাকা পরিশোধের অনুরোধ করেন। পরে বাটেনহেইম তাৎক্ষণিক ২৫০ কোটি টাকা পরিশোধের অঙ্গীকার করেন। এরপর সেনাপ্রধান আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল পিস অপারেশনস জন পিয়েরে ল্যাক্রয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। আইএসপিআর।