'শিশুর জন্য নিরাপদ পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে'

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

শিশুদের জন্য নিরাপদ পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। একইসঙ্গে তাদের সুস্থভাবে বেড়ে ওঠাও নিশ্চিত করতে হবে। নারী ও শিশুর উন্নয়নে মাতৃত্বভাতা, ল্যাক্টেটিং ভাতা ও শিশুর প্রারম্ভিক যত্ন নিশ্চিত করতে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়, ইউনিসেফ এবং ডব্লিউএফএ যৌথভাবে কাজ করছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ইউনিসেফের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদের সঙ্গে অংশীদারিত্বমূলক সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক

মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুন নাহার। এ সময় সচিব শিশুদের সুষম উন্নয়নের লক্ষ্যে স্টেকহোল্ডারদের নিয়ে সম্মিলিতভাবে কাজ করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

সভায় ইউনিসেফের প্রতিনিধি হাসিনা বেগম বলেন, শূন্য পাঁচ বছর বয়সী শিশুদের জন্য সেবাগুলো একই ছাতার নিচে আশা যেতে পারে। এতে তারা আরও বেশি উপকৃত হবে। শিশু একাডেমির পরিচালক আনজীর লিটন বলেন, শিশুদের জন্য নিরাপদ ইন্টারনেট সময়ের দাবি। তিনি এ বিষয়ে কাজ করার জন্য ইউনিসেফের সহযোগিতা চান।

সভায় উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শেখ রফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত সচিব আইনুল কবীর, ইউনিসেফ বাংলাদেশের প্রতিনিধি নরিন খান প্রমুখ। এ ছাড়াও বিভিন্ন প্রকল্পের পরিচালক ও ইউনিসেফ বাংলাদেশের অন্য প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় এক্সিলারেটিং প্রটেকশন ফর চিলড্রেন (এপিসি), কমিউনিকেশন ফর ডেভেলপমেন্ট, শিশুর প্রারম্ভিক যত্ন ও আগামীর শিশুসহ অন্যান্য বিষয়ে কৌশলগত অংশীদারিত্ব নিয়ে আলোচনা হয়।