চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, মিডিয়ার মাধ্যমে জেনেছি ঢাকায় ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে। তাই চিকুনগুনিয়া ও ডেঙ্গু প্রতিরোধে ক্রাশ প্রোগ্রাম শুরু করা হয়েছে। ১৬১ জন প্রতিদিন বিভিন্ন এলাকায় ওষুধ ছিটাবে। তিনি বলেন, চসিকের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতিসহ আমি নিজে এ অভিযান নজরদারি করব। গতকাল সোমবার নগরের মোমিন রোডের ঝাউতলা সেবক কলোনি এলাকায় বিশেষ মশক নিধন অভিযান উদ্বোধনকালে মেয়র এসব কথা বলেন।

মশক নিধনে ১৫টি ফগার মেশিন ও ১৫টি হ্যান্ড স্প্রে মেশিন ব্যবহার করে ক্রাশ প্রোগ্রাম উদ্বোধন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, মনোয়ারা বেগম মনি, উপ প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা মোরশেদুল আলম চৌধুরী প্রমুখ।

এরই মধ্যে দুই কোটি টাকার মশা ও লার্ভা ধ্বংসকারী ওষুধ কেনা হয়েছে জানিয়ে মেয়র বলেন, সচেতনতা সৃষ্টিতে গণমাধ্যমে বিজ্ঞাপন ও লিফলেট বিতরণ করব। ক্রাশ প্রোগ্রামে প্রতি ওয়ার্ডের ঝোপঝাড় পরিস্কার ও নালায় যেখানে মশার জন্ম হয় সেখানে ওষুধ ছিটানো হবে। ডেঙ্গুসহ মশাবাহিত রোগ প্রতিরোধে নগরবাসীর সহযোগিতা কামনা করে মেয়র আরও বলেন, পরিস্কার ও বদ্ধ পানি এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র। তাই বাসাবাড়ির আশপাশে ডাবের খোসায়, ফুলের টবে, ছাদে, ফ্রিজের নিচের ট্রেতে যাতে পানি জমে না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। কারও জ্বর বা ডেঙ্গুর লক্ষণ দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

চসিকের প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শফিকুল মান্নান সিদ্দিকী যিশু সমকালকে জানান, অভিযান উদ্বোধনের পর নগরের ৪১ ওয়ার্ডে ১২০ জন শ্রমিক ওষুধ ছিটানো শুরু করেছেন।

মন্তব্য করুন