বরগুনার বেতাগীতে স্কুলে না যাওয়ায় বাসায় গিয়ে মো. সাব্বির নামে অষ্টম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে পা ভেঙে দিয়েছেন প্রধান শিক্ষক। আহত ছাত্রকে বেতাগী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে শিক্ষার্থীর পরিবার থানায় অভিযোগ করেছে।

বেতাগী শহরের চিন্তাহরণ শিকদার মেমোরিয়াল স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র মো. সাব্বির হোসেন গত শনি ও রোববার স্কুলে যায়নি। পরে রোববার বিকেলে স্কুলের প্রধান শিক্ষক বাদল শিকদার ওই শিক্ষার্থীর বাসায় গিয়ে তার স্কুলে না যাওয়ার কারণ জিজ্ঞেস করেন। এক পর্যায়ে প্রধান শিক্ষক ক্ষুব্ধ হয়ে ওই শিক্ষার্থীকে মায়ের সামনেই লাঠি দিয়ে পেটাতে শুরু করেন। এ সময় সাব্বিরের মা লাকি আক্তার শিখা বাধা দিলে তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেন বাদল শিকদার।

আহত সাব্বির জানায়, চেয়ার আর খাটের ওপর তার পা রেখে প্রধান শিক্ষক তার ওপর উঠে দাঁড়ান। এতে তার পা ভেঙে যায়। পরে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বেতাগী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বেতাগী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বরত চিকিৎসক তাহেরা বেগম বলেন, সাব্বিরের পায়ে ফ্যাকচার হয়েছে। তবে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক বাদল শিকদার বলেন, 'আমি ক'টা চড়-থাপ্পড় দিয়েছি; অন্য কিছু ঘটেনি।'

সাব্বিরের মা লাকি আক্তার শিখা বলেন, থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই। বেতাগী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. কামরুজ্জামান মিয়া বলেন, অভিযোগ এখনও হাতে পাননি। পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাজীব আহসান বলেন, আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বেতাগী থানার ওসিকে বলা হয়েছে।

মন্তব্য করুন