কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বাংলাদেশ বন্যা-খরার দেশ। বন্যা আমাদের জন্য আশীর্বাদ, আবার খুব খারাপ হলে অভিশাপ। এটি বড় বন্যা নয়। এতে ফসলের তেমন কোনো ক্ষতি হবে না। গতকাল সোমবার সচিবালয়ে ফিলিপাইনের চাল ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় চাল রফতানিকারকরাও উপস্থিত ছিলেন।

চাল ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা প্রসঙ্গে কৃষিমন্ত্রী বলেন, কৃষকের উৎপাদিত ধানের নায্যমূল্য নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ফিলিপাইনে এক লাখ টন চাল রফতানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ফিলিপাইন বাংলাদেশ থেকে বেশি চাল নিতে চায়। তবে দেশের জরুরি প্রাকৃতিক দুর্যোগের কথা বিবেচনায় নিয়ে প্রথমে এক লাখ টন সেদ্ধ চাল দিয়ে রফতানি শুরু হবে।

বাংলাদেশে যে বাম্পার ফলন হচ্ছে, তাতে এখন ১০ লাখ টনের বেশি চাল রফতানি করা সম্ভব উল্লেখ করে তিনি আরও জানান, তুলনামূলক কম দাম আর ভালোমানের চাল হওয়ায় ফিলিপাইনের ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশ থেকে চাল নিতে আগ্রহী।

এ সময় চাল রফতানিকারক ও রশিদ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুর রশিদ বলেন, ফিলিপাইনের ব্যবসায়ীদের কাছে মাঝারি ধরনের আটাশ ও ঊনত্রিশ চালের চাহিদা বেশি।

মন্তব্য করুন