শিশুর প্রতি সহিংসতা রোধে আট সুপারিশ

প্রকাশ: ২৬ জুলাই ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

শিশুর প্রতি সহিংসতা রোধে স্বতন্ত্র আইন প্রণয়নসহ আটটি সুপারিশ তুলে ধরেছে চাইল্ড রাইটস অ্যাডভোকেসি কোয়ালিশন ইন বাংলাদেশ।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত 'শিশুর প্রতি সহিংসতা, আর না :আমাদের যা করতে হবে' শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে এসব সুপারিশ করা হয়।

কোয়ালিশনের সুপারিশগুলো হলো- স্বতন্ত্র আইন প্রণয়ন করা; শিশু নির্যাতন, ধর্ষণ ও হত্যার সকল ঘটনার দ্রুত সময়ে বিচারিক কার্যক্রম সম্পন্ন করা এবং শিশু আইন ২০১৩ (সংশোধিত ২০১৮) অনুযায়ী শিশু আদালতকে স্বতন্ত্র আদালত হিসেবে রাখা।

কোয়ালিশনের পক্ষে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) নির্বাহী পরিচালক শীপা হাফিজা। তিনি বলেন, বাংলাদেশে শিশু অধিকার ও শিশু নাগরিকত্ব পরিস্থিতি উন্নয়নে সরকারকে জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদ এবং ইউনিভার্সাল পিরিয়ডিক রিভিউ (ইউপিআর) প্রদত্ত অঙ্গীকার যথাযথ ও সময়ানুগ বাস্তবায়ন করতে হবে।

জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরামের সচিব নাসিমা আক্তার

জলি বলেন, গত বছরের তুলনায় শিশুদের প্রতি সহিংসতা প্রায় দ্বিগুণ

বৃদ্ধি পেয়েছে। এ পরিস্থিতি নিরসনে দ্রুত ও কার্যকর পদক্ষেপ এখনই

নিতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সেভ দ্য চিলড্রেন ইন বাংলাদেশের ম্যানেজার রাশেদা আক্তার, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের ম্যানেজার (প্রশিক্ষণ) সৈয়দ হুসনে কাদেরী, এডুকো বাংলাদেশের ম্যানেজার ফরিদা ইয়াসমিন, ওয়ার্ল্ডভিশনের শিশু সুরক্ষা কো-অর্ডিনেটর মীর রেজাউল করিম প্রমুখ।

কোয়লিশনের সদস্যরা হচ্ছে- সেভ দ্য চিলড্রেন, অ্যাকশন এইড বাংলাদেশ, আইন ও সালিশ কেন্দ্র, চাইল্ড রাইটস গভর্ন্যান্স অ্যাসেমব্লি (সিআরজিএ), এডুকেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন-এডুকো, জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরাম, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ, টেরেডেস হোমস নেদারল্যান্ডস, বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরাম এবং ওয়ার্ল্ডভিশন বাংলাদেশ। এরা সবাই একত্রে বাংলাদেশে শিশুদের অধিকার নিয়ে অ্যাডভোকেসি করে থাকে।