ইন্ধনদাতাদের শনাক্তে সিএমপি কমিশনারকে শিক্ষা উপমন্ত্রীর ফোন

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০১৯

চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রামে ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির (ইউএসটিসি) ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদের গায়ে কেরোসিন ঢেলে হত্যাচেষ্টায় ইন্ধনদাতাদের শনাক্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমানকে ফোন করে এ নির্দেশনা দেন তিনি। তদন্ত করে জড়িতদের গ্রেফতারের পাশাপাশি আইনের আওতায় আনারও নির্দেশ দেন উপমন্ত্রী।

সিএমপি কমিশনার মাহাবুবর রহমান বলেন, দুপুরের দিকে শিক্ষা উপমন্ত্রী ফোন করে ইউএসটিসিতে সংঘটিত ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চান। ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সেদিন পুলিশ কী করেছে তাও জানতে চান তিনি। এ পর্যন্ত একজনকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়টি জানিয়েছি।

তিনি বলেন, এ ঘটনার সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের কারা জড়িত ও ইন্ধনদাতা কে, তা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন উপমন্ত্রী। বিষয়টি আমরা অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি। এ বিষয়ে সংশ্নিষ্টদের নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।

২ জুলাই দুপুরে অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদকে অফিস থেকে টেনে বের করে প্রকাশ্যে রাস্তায় নিয়ে গায়ে কেরোসিন ঢেলে লাঞ্ছিত করে তার বিভাগের একদল শিক্ষার্থী। ঘটনার দিন ইউএসটিসির ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার দিলীপ কুমার বড়ূয়া বাদী হয়ে খুলশী থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় ইংরেজি বিভাগের স্নাতকোত্তর ব্যাচের ছাত্র মাহমুদুল হাসানকে একমাত্র আসামি করা হয়।

শিক্ষক মাসুদ মাহমুদের দাবি, তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পর ইংরেজি বিভাগের কয়েকজন শিক্ষককে নানা অভিযোগে চাকরিচ্যুত করা হয়। পরবর্তী সময়ে তাদের ইন্ধনেই শিক্ষার্থীদের একাংশ তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানিসহ নানা অভিযোগ তুলতে থাকে।