ট্রেনে হামলা মামলার রায়ে বিএনপি বিক্ষুব্ধ মির্জা ফখরুল

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০১৯

সমকাল প্রতিবেদক

পাবনার ঈশ্বরদী রেলস্টেশনে ১৯৯৪ সালে শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রেনে হামলার ঘটনায় মামলার রায়ে বিএনপি শুধু হতাশ নয়, চরম বিক্ষুব্ধ বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, এই রায় প্রমাণ করেছে, বাংলাদেশে কোনো বিচার ব্যবস্থার স্বাধীনতা নেই। দেশে 'জুডিসিয়াল এনার্কি' (বিচারিক নৈরাজ্য) চলছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বিএনপি সমর্থিত চিকিৎসকদের সংগঠন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) উদ্যোগে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এ অভিযোগ করেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, পাবনার আদালতে যে রায় দেওয়া হয়েছে, তাতে পুরো জাতি বিস্মিত। এটা কোন ধরনের রায়? দুটো গুলির শব্দ হয়েছে, গুলির শব্দটা কারা করেছেন, গুলি কে করেছে। এগুলোর

কোনো তদন্ত হয়নি।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে বন্দি রাখা হয়েছে অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশ পরিবর্তন আনতে গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে তরুণ সমাজসহ দল-মত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দেশে এখন ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই। এখন যারা ঐক্যের বাইরে কথা বলবেন, তারা আসলে দেশের, দেশের মানুষের ক্ষতি করবেন।

তিনি বলেন, সরকার সুপরিকল্পিতভাবে-সচেতনভাবে বাংলাদেশকে একটা ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চলেছে। সব প্রতিষ্ঠানকে ভেঙে দিয়েছে। অর্থনীতি চরম বিপর্যয়ের মুখে। ব্যাংকিং ব্যবস্থা একেবারে শেষ। তাদের লোকজনকে নিয়ে ওটাকে ফোকলা করে দিয়েছে। ব্যাংকগুলোকে তাদের একটা শোষণের যন্ত্রে পরিণত করেছে।

তিনি বলেন, মেগা প্রজেক্টের নামে মেগা চুরি, মেগা দুর্নীতি হচ্ছে। এই টাকাগুলো চুরি করে তারা বিদেশে নিয়ে যাচ্ছে। সেখানে বাড়িঘর করছে।

প্রধানমন্ত্রী চীনের সরকারের দাওয়াতে সেখানে যাননি দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী একটা অর্থনৈতিক ফোরামের দাওয়াতে গেছেন। অনেকগুলো চুক্তি সই হয়েছে। চুক্তিগুলো হচ্ছে মেগা প্রজেক্ট চুক্তি, মেগা দুর্নীতি।

সংগঠনের আহ্বায়ক অধ্যাপক ফরহাদ হালিম ডোনারের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব ওবায়দুল কবির খানের পরিচালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেন, ড্যাবের নবনির্বাচিত সভাপতি অধ্যাপক হারুন আল রশিদ, মহাসচিব আবদুস সালাম প্রমুখ বক্তব্য দেন।