শিশুসহ ধর্ষণের শিকার ৪ জন

প্রকাশ: ১৫ আগস্ট ২০১৯      

সমকাল ডেস্ক

শিশুসহ চার নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এর মধ্যে কুড়িগ্রামে একসঙ্গে শিশু দুই বোনকে ধর্ষণ করেছে এক বখাটে। এ ছাড়া ঝিনাইদহে সপ্তম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী ও খুলনায় গৃহবধূকে ধর্ষণ করা হয়েছে।

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি জানান, ধর্ষণের শিকার শিশু দুটি সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো বোন। সাত ও আট বছরের শিশু দুটি মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পাশের বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠান দেখতে গেলে প্রতিবেশী রুবেল মিয়া তাদের নিজের খালি বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করে। হাতেনাতে আটক রুবেলকে পুলিশে দেয় স্থানীয়রা। রুবেল সদর উপজেলার কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নের শিবরাম আলুটারী গ্রামের হোসেন আলীর ছেলে।

এ ব্যাপারে এক শিশুর মা বাদী হয়ে নিজ কন্যা ও ভাইয়ের কন্যাকে ধর্ষণের অভিযোগে রুবেলকে আসামি করে মঙ্গলবার রাতেই থানায় মামলা করেন।

সদর থানার ওসি রাজু আহমেদ জানান, মামলার আসামি রুবেলকে গতকাল বুধবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সঞ্চিতা বিশ্বাসের আদালতে হাজির করা হলে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। এ ছাড়া শিশু দুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি জানান, ঝিনাইদহ পৌর এলাকায় সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রী (১৪) ধর্ষিত হয়েছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে ঝিনাইদহ সদর থানায় মামলা হয়েছে। ধর্ষিতার চাচা জানান, ঈদের দিন (সোমবার) সন্ধ্যার দিকে খাজুরা গ্রামের মুন্তাজ আলীর ছেলে বাদশা, মন্টু মণ্ডলের ছেলে রুহুল আমীন ও জাফরের ছেলে মুন্নু তার ভাতিজিকে মাঠ থেকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ করে। ধর্ষিতাকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান খান বলেন, এ ব্যাপারে ধর্ষিতার বাবা বাদী হয়ে মামলা করেছেন। আসামিদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

খুলনা ব্যুরো জানায়, খুলনা মহানগরীর কয়লাঘাট এলাকায় এক গৃহবধূকে (২৪) চাকরি দেওয়ার কথা বলে নিয়ে ধর্ষণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ সুকান্ত ভৌমিক নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে। সুকান্ত নড়াইলের কালিয়া উপজেলার কুলশুর এলাকার রঙ্গলাল ভৌমিকের ছেলে।

খুলনা থানার এসআই সাইফুল ইসলাম

জানান, কয়লাঘাট এলাকার প্রণবের বাড়ির ভাড়াটিয়া সুকান্ত ভৌমিক চাকরির আশ্বাস দিয়ে ১১ আগস্ট রাতে ওই গৃহবধূকে তার কয়লাঘাটের ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে আটকে রেখে রাতভর তাকে ধর্ষণ করে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী গৃহবধূ বাদী হয়ে ধর্ষণ মামলা করেন। এ মামলায় সুকান্তকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।