আলোচনা সভায় ১৪ দলের নেতারা

সোনার বাংলা চাইলে দুর্নীতির লাগাম টানুন

প্রকাশ: ২৫ আগস্ট ২০১৯

সমকাল প্রতিবেদক

এই দেশকে সোনার বাংলায় পরিণত করতে সারাজীবন সংগ্রাম করে গেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে গড়তে সর্বাত্মক চেষ্টা করেছেন। তার দল ১১ বছর ধরে দেশ শাসন করছে। বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হচ্ছে। দারিদ্র্য কমছে। আয় বাড়ছে। একইসঙ্গে ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য বাড়ছে। ব্যাংক লুট হচ্ছে। শেয়ারবাজারে হরিলুট চলছে। এই বাংলাদেশ তো বঙ্গবন্ধু চাননি। তার সোনার বাংলা গড়তে দুর্নীতির মুখে লাগাম পরাতে হবে।

বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় পার্টি (জেপি) আয়োজিত এক সভায় ক্ষমতাসীন ১৪ দলীয় জোটের নেতারা এসব কথা বলেন। গতকাল শনিবার রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এ সভা হয়।

জেপি সভাপতি আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু, বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ূয়া, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন, জেপির সাধারণ সম্পাদক শেখ শহীদুল ইসলাম প্রমুখ।

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেন, দেশের উন্নতি হচ্ছে। আগে জনগণ খেতে পারত না, পরতে পারত না, এখন দামি কাপড় পরে। দুর্নীতি, লুটপাট হচ্ছে। তিনি বলেন, যতদিন বাংলাদেশ থাকবে বা অন্য নামের এ ভূখণ্ড থাকবে, বাঙালি জাতির কথা আসবে, ততদিনই বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারিত হবে। মোজাফফর হোসেন পল্টু বলেন, যৌবনে পাকিস্তানের জন্য বঙ্গবন্ধু লড়াই করেছেন। তবে স্বাধীনতার মাত্র এক বছরের মাথায় তিনি বুঝেছেন, ব্রিটিশদের জায়গায় পাঞ্জাবিরা এসেছে। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত মুক্তি আসেনি। এর পর তিনি তিলে তিলে এ জাতিকে মুক্তি সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত করেছেন। তিনি ছয় দফার মাধ্যমে বাঙালির স্বাধিকার সংগ্রামকে চূড়ান্ত রূপ দিয়েছেন।

রাশেদ খান মেনন বলেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যার জন্য অনেকে তখনকার বিরোধী দলকে দায়ী করেন। এসব গলাবাজি যারা করেন, তারা ভুলে যান মোশতাকের শপথ তারা পড়িয়েছেন। এই যে ব্যাংক লুট, শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারি এসব তো বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নয়, তাহলে কেন প্রশ্রয় পাচ্ছে তারা।

হাসানুল হক ইনু বলেন, বঙ্গবন্ধুর খুনের হুকুমদাতাদের চিহ্নিত করতে কমিশন গঠন করা উচিত। বঙ্গবন্ধুর পরিবারের প্রিয়জনরাই ১৫ আগস্ট ঘটিয়েছে। শেখ হাসিনাকেও এসব ঘরকাটা ইঁদুর সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে। কারণ বিপদ এখনও কাটেনি। দিলীপ বড়ুয়া বলেন, সোনার বাংলা গড়তে দুর্নীতিবাজদের প্রতিহত করতে হবে।