বগুড়ার শিবগঞ্জে এক রাতে তিনটি বাল্যবিয়ের আয়োজন করায় অভিযান চালিয়ে বর-কনে, কাজিসহ ১৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে তাদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও জরিমানা করা হয়। এই বিয়ের আয়োজন করা হয়েছিল জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে।

শুক্রবার রাতে বাল্যবিয়ের আয়োজনের খবর পেয়ে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ উপজেলার বিহার, জামগ্রাম, কানুপুর, ধাওয়াগীর ও শংকরপুর গ্রামে অভিযান চালায়। এ সময় ধাওয়াগীর গ্রামে চাঁন মিয়ার ১৩ বছর বয়সী মেয়ের বিয়ের আয়োজন করা হয়েছিল। অভিযান চালিয়ে পুলিশ বর শংকরপুর গ্রামের মজনু মিয়ার ছেলে মিলন (২৩), মেয়ের বাবা চাঁন মিয়া ও কাজি আব্দুল আজিজ ও তিনজন বরযাত্রীকে গ্রেফতার করে।

একই সময় পুলিশের আরেকটি দল কানুপুর গ্রামে আয়োজন করা বাল্যবিয়ের অনুষ্ঠানে অভিযান চালায়। সেখানে বর পালিয়ে গেলেও বরযাত্রী, শাহানুর রহমান নামে এক কাজিসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করে। এ ছাড়া একই রাতে বিহার ইউনিয়নের ফকিরপাড়া গ্রামে আয়োজন করা বাল্যবিয়ে ভণ্ডুল করে দেয় পুলিশ। সেখান থেকেও পুলিশ আজিজার রহমান, বজলার রহমান, কনে শাকিলাসহ চারজনকে গ্রেফতার করে। পরে গতকাল শনিবার ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট ও শিবগঞ্জের ইউএনও আলমগীর কবিরের সামনে হাজির করলে তাদের  বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও জরিমানা করা হয়।

শিবগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) নান্নু খান অভিযান চালিয়ে ১৪ জনকে গ্রেফতার ও তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

২০ আগস্ট শিবগঞ্জ থানা প্রাঙ্গণে উপজেলার সব জনপ্রতিনিধিকে নিয়ে বাল্যবিয়েবিরোধী সমাবেশের আয়োজন করা হয়।





মন্তব্য করুন