যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার বলেছেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের স্বেচ্ছায়, নিরাপদ ও স্থায়ী প্রত্যাবাসন চায় যুক্তরাষ্ট্র। এ জন্য মিয়ানমারের ওপর ক্রমাগত চাপ অব্যাহত রেখেছে তার দেশ। এর অংশ হিসেবে মিয়ানমারের সেনাপ্রধানসহ দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর অনেকের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার অষ্টমীরচর ইউনিয়নের নটারকান্দি উচ্চ বিদ্যালয়  প্রাঙ্গণে প্রতিবন্ধী ও  বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের নগদ অর্থ সহায়তা কার্যক্রম উদ্বোধনকালে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি। রাষ্ট্রদূত মিলার রোহিঙ্গাদের  আশ্রয় দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে আরও বলেন, বাংলাদেশ লাখ লাখ মানুষের জন্য তাদের হৃদয় এবং সীমান্ত খুলে দিয়েছে। বাংলাদেশ যা করেছে তা ব্যতিক্রমী ও পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল।

এ সময় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এক লাখ ডলার সহায়তাদানের ঘোষণা দেন রাষ্ট্রদূত মিলার। এর আগে ইউএসএইড ও কেয়ারের অর্থায়নে এবং স্থানীয় উন্নয়ন সংগঠন সলিডারিটির আয়োজনে বন্যায় জরুরি ত্রাণ সহায়তা বিষয়ক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মোছা. সুলতানা পারভীন। এ সময় ইউএসএইডের মিশন ডিরেক্টর ডেরিক ব্রাউন, কেয়ারের কান্ট্রি ডিরেক্টর জিয়া চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. হাফিজুর রহমান, উপজেলা চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার বীরবিক্রম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ মো. শামসুজ্জোহাসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বন্যায় জরুরি ত্রাণ সহায়তা প্রকল্পের আওতায় চিলমারী ও সদর উপজেলার ১১০ প্রতিবন্ধীর প্রত্যেককে নগদ সাড়ে ৫ হাজার এবং বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১১০০ জনকে সাড়ে চার হাজার টাকা করে মোট ৫৫ লাখ ৫৫ হাজার টাকা সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া প্রত্যেককে একটি করে ব্যাগে কাপড় কাচা ও গোসলের সাবান, প্লাস্টিকের বালতি, ডিটারজেন্ট পাউডার, স্যানিটারি ন্যাপকিন, তরল অ্যান্টিসেপ্টিক ও খাবার স্যালাইন দেওয়া হচ্ছে।

মন্তব্য করুন