সম্মেলনে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা

হৃদরোগে রেডিয়াল পদ্ধতি বেশি কার্যকর

প্রকাশ: ২৫ আগস্ট ২০১৯

সমকাল প্রতিবেদক

হৃদরোগ নির্ণয়ে রেডিয়াল এনজিওপ্লাস্টি পদ্ধতি অধিক কার্যকর বলে মত দিয়েছেন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞরা। তাদের অভিমত, এ পদ্ধতি অনেক সহজ। এর মাধ্যমে সময় ও খরচ অনেক কম লাগে। হার্ট অ্যাটাকের পর রেডিয়াল এনজিওপল্গাস্টিতে মৃত্যুর হারও অনেক কম।

রাজধানীর একটি পাঁচতারা হোটেলে দু'দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সম্মেলনের গতকাল শনিবার সমাপনী দিনে তারা এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ রেডিয়াল ইন্টারভেনশন কোর্সের (বিআরআইসি) আয়োজনে গত শুক্রবার এ সম্মেলন শুরু হয়।

সম্মেলনে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলেন, হৃদরোগ নির্ণয়ে বিশ্বের জনপ্রিয় পদ্ধতি হলো 'রেডিয়াল এনজিওগ্রাম', যা হাতের কবজির সামান্য ওপরে ছোট ছিদ্র তৈরির মাধ্যমে করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রে ৭০ ভাগ, যুক্তরাজ্যে ৯০ ভাগ, ইউরোপে ৬০-৭০ ভাগ এনজিওগ্রাম ও এনজিওপল্গাস্টি রেডিয়াল পদ্ধতিতে করা হয়।

প্রায় তিন বছর আগে কব্জির নিচে ডিস্টাল রেডিয়াল আর্টারিতে এনজিওগ্রাম ও এনজিওপল্গাস্টি শুরু করেন জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের অধ্যাপক ডা. মীর জামালউদ্দিন। তিনি বলেন, রেডিয়াল এনজিওগ্রামের জন্য মাত্র চার ঘণ্টা হাসপাতালে অবস্থান করতে হয়। এমনকি এনজিওপল্গাস্টি করে কোনো ক্ষেত্রে এক দিনেই রোগীকে বাড়িতে পাঠানো যায়। গত তিন বছরে দুই হাজারের অধিক এনজিওগ্রাম ও এনজিওপল্গাস্টি এই পদ্ধতিতে তিনি সফলভাবে সম্পন্ন করেছেন।

বিআরআইসি কোর্স ডিরেক্টর অধ্যাপক ডা. মীর জামাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক ব্রিগেডিয়ার (অব.) ডা. আবদুল মালিক। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম ও বাংলাদেশ সোসাইটি অব কার্ডিওলজির সভাপতি অধ্যাপক ডা. একেএম মহিবুলল্গাহ।

দেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, মালয়েশিয়া, চীন, ভারত ও বাংলাদেশের খ্যাতনামা শতাধিক ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজিস্ট অংশ নেন।