রাজধানীর কাফরুলের একটি বাসায় ঘুমন্ত স্বামীকে ক্রিকেটের ব্যাট দিয়ে পিটিয়ে হত্যার পর একমাত্র সন্তানকে নিয়ে তার স্ত্রী পালিয়েছেন। গতকাল শনিবার সকালে ওই ঘটনার পর বিকেলে স্বামী বাবুল আক্তার (৩৬) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। তিনি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে টাইপিস্ট পদে চাকরি করতেন। একই ঘটনায় তার মা সোনেকা বেগম (৬০) আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

বাবুলের বাবা রিফাজ উদ্দিন জানান, তার ছেলের সঙ্গে স্ত্রী রিমা আক্তারের পারিবারিক কলহ ছিল। ওই ঘটনার জের ধরে শনিবার সকাল ৯টার দিকে ঘুমন্ত অবস্থায় বাবুলকে রিমা ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে মাথায় এলোপাতাড়ি আঘাত করে। চিৎকারে বাবুলের মা থামাতে গেলে তাকেও পেটানো হয়। কিছু বুঝে ওঠার আগেই রিমা তার পাঁচ বছরের শিশুসন্তান তায়িফকে নিয়ে পালিয়ে যায়।

স্বজনরা জানান, গুরুতর অবস্থায় বাবুল ও তার মাকে প্রথমে আগারগাঁওয়ে নিউরো সায়েন্স ইনস্টিটিউটে নেওয়া হয়। দুপুরের দিকে সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে বিকেলে চিকিৎসক বাবুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

কাফরুল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুস সামাদ বলেন, শুরুর দিকে বাবুলের পরিবার পুলিশকে কিছু জানায়নি। তবে মারা যাওয়ার  পর হাসপাতাল থেকে খবর পেয়ে তারা খোঁজ-খবর নেওয়া শুরু  করেছেন। নিহত বাবুলের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে আইনগত ব্যবস্থা  নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন