সৌদি আরবে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারের চার তরুণ। শুক্রবার সকালে মদিনায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হচ্ছেন- উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের বদলপুর গ্রামের আব্দুল জব্বার মিয়ার ছেলে সুরুজ মিয়া (২৫), একই গ্রামের মোতালিব ব্যাপারির ছেলে নুরে আলম (২৩) ও পাশের খালিয়ারচর গ্রামের মোকাররম মিয়ার ছেলে উজ্জল (২২) এবং খাগকান্দা ইউনিয়নের চম্পকনগর গ্রামের আক্রাম আলীর ছেলে রাসেল মিয়া (২৪)। গতকাল শনিবার সকালে নিহতদের বাড়িতে দুর্ঘটনার খবর পৌঁছালে শুরু হয় শোকের মাতম। পরিবারের সদস্যদের কান্নায় ভারি হয়ে ওঠে গোটা এলাকা।

অভিবাসী কর্মী উন্নয়ন প্রোগ্রামের (ওকাপ) ফিল্ড অফিসার আমিনুল হক ও কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম স্বপন ওই চার প্রবাসীর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন।

চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম স্বপন জানান, সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত সবাই মদিনার আল-ফাহাদ কোম্পানিতে কর্মরত ছিলেন। শুক্রবার বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টায় তারা একটি মাইক্রোবাসে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে দূর্ঘটনার কবলে পড়েন। চারজন ঘটনাস্থলেই মারা যান।

সরেজমিন চম্পকনগরের নিহত রাসেলের বাড়ি গিয়ে দেখা যায়, সেখানে প্রতিবেশী ও আশপাশের লোকজন জড়ো হয়েছেন। সবার চোখে পানি। বুকফাটা আর্তনাদ করছেন পরিবারের লোকজন। রাসেলের মা-বাবা দু'জনই ছেলেকে হারিয়ে বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন। রাসেলের এক স্বজন জানান, ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় তিন বছর আগে ধারদেনা করে রাসেলকে বিদেশ পাঠানো হয়েছিল। ছেলে হারিয়ে কান্নাই এখন তাদের একমাত্র সম্বল।

ওকাপের ফিল্ড অফিসার আমিনুল হক বলেন, খবর পেয়ে অভিবাসী কর্মী উন্নয়ন প্রোগ্রামের একটি প্রতিনিধি দল নিহতদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। তারা মরদেহ দ্রুত ফিরিয়ে আনা, এয়ারপোর্টে প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক থেকে দাফনকার্যের চেক গ্রহণ, ক্ষতিপূরণের অর্থপ্রাপ্তি সম্পর্কে সরকারি সহযোগিতার বিষয়ে নিহতের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলেছেন।

মন্তব্য করুন