শতকোটি টাকা আত্মসাতে দুদকের মামলা

ঢাকা আরবান কো-অপারেটিভ চেয়ারম্যানসহ আসামি ৭

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

অবৈধ ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে মানুষের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে দি ঢাকা আরবান কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল আলমসহ সাতজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদক উপপরিচালক সেলিনা আখতার বাদী হয়ে গতকাল রোববার কমিশনের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়-১ এ মামলাটি দায়ের করেন।

কৌশলে সমবায় অধিদপ্তরের নিবন্ধন নিয়ে মাল্টিলেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) খুলে প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে দেশের সরলমনা মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নেওয়া হয় প্রায় ১০০ কোটি টাকা।

এজাহারে বলা হয়, দীর্ঘদিন আগের ভুয়া নিবন্ধন নম্বর, ভুয়া লিকুইডেশন নম্বর জালিয়াতির মাধ্যমে দি আরবান কো-অপারেটিভ ব্যাংক নামে ভুয়া সমবায় সমিতি সৃষ্টি এবং সমবায় আইন লঙ্ঘন করে সারাদেশে শাখা খুলে অবৈধ ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে জনগণের কাছ থেকে এ অর্থ লুটে নেওয়া হয়।

আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে উচ্চহারে লাভের প্রলোভন দেখিয়ে সঞ্চয় হিসাবে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে এ টাকা আত্মসাৎ করেন। ২০০৬ সাল থেকে গত বছর পর্যন্ত জালিয়াতি করে ওই পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেওয়া হয়।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- সাবেক ঢাকা জেলা সমবায় অফিসার ও বর্তমানে সমবায় অধিদপ্তরের যুগ্ম নিবন্ধক মিজানুর রহমান, দি আরবান কো-অপারেটিভ ব্যাংকের নারায়ণগঞ্জ শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক মিজানুর রহমান ভূঁইয়া, সাবেক ঢাকা জেলা নিরীক্ষক লুৎফর রহমান, ঢাকা জেলা সমবায় অফিসের সাবেক উপসহকারী নিবন্ধক মো. খবির খান, ঢাকা জেলা সমবায় অধিদপ্তরের পরিদর্শক মহসিন মজুমদার ও দি ঢাকা আরবান কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেডের সভাপতি তাহমিনা বেগম।

এজাহারে আসামিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪০৯/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/১০৯ এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা ও মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২-এর ৪(২), ৪(৩) ধারা লঙ্ঘনের অভিযোগ  আনা হয়েছে।