৮০তম জন্মদিনে বিশিষ্টজন

পংকজ ভট্টাচার্য লোভের ঊর্ধ্বে আদর্শকে স্থান দিয়েছেন

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

'যখনই দেশের জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায় কিংবা অসহায় মানুষ অত্যাচারের শিকার হয়েছে, পংকজ ভট্টাচার্য তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তিনি ৮০ বছরের জীবনে ক্ষমতার লোভ, ভয়-ভীতির ঊর্ধ্বে নিজের আদর্শকে স্থান দিয়েছেন। তিনি তার আদর্শে এবং চিন্তায় একনিষ্ঠ থেকেছেন।'

গতকাল সোমবার রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান মিলনায়তনে ঐক্যন্যাপ সভাপতি পংকজ ভট্টাচার্যের ৮০তম জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় বক্তারা এসব কথা বলেন। পংকজ ভট্টাচার্যের জন্মদিন উদযাপনে নাগরিক কমিটি আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান।

তিনি বলেন, প্রায় ৬০ বছর ধরে পংকজ রাজনীতিতে আছেন। তিনি কারা নির্যাতন সহ্য করেছেন, নানা রকম অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছেন। কিন্তু তার যে অভীষ্ট লক্ষ্য, তা পরিবর্তিত হয়নি। তিনি জীবনে একাধিক রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংশ্নিষ্ট হয়েছেন; কিন্তু তার আদর্শে এবং চিন্তায় একনিষ্ঠ থেকেছেন। তিনি আরও বলেন, পংকজের যে ব্যক্তিগত অভিযান, সেটি হলো বাংলাদেশকে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে দেখা, সমাজকে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় মণ্ডিত দেখা, অর্থনীতিতে সুষম বণ্টন দেখার অভিযান।

অনুষ্ঠানে সাবেক শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ূয়া বলেন, পংকজ ভট্টাচার্য একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে নিজেকে বিকশিত করেছেন। তিনি জীবনে যে  আদর্শ নিয়ে চলেছেন, তার ওপরই অবিচল  থেকেছেন। এটাই তার জীবনের সার্থকতা।

শিক্ষাবিদ ড. অজয় রায় বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে পংকজ ভট্টাচার্য ও তার সঙ্গীরা ক্যাম্পাসে অসাম্প্রদায়িক রাজনীতির সূচনা করেছিলেন।

লেখক ও কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, যখনই দেশের জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায় কিংবা অসহায় মানুষ অত্যাচারের শিকার হয়েছে, সেখানেই পংকজ ভট্টাচার্য ছুটে গিয়েছেন।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালেদ মাহমুদ বলেন, পংকজ ভট্টাচার্য বর্তমান রাজনীতির স্বপ্নের পুরুষ। যাদের দূর থেকে দেখেই মানুষের ভালোবাসা জন্মায়, তিনিও তেমনি একজন মানুষ।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ বলেন, পংকজ ভট্টাচার্য তার ৮০ বছরের জীবনে আদর্শ থেকে একচুলও নড়েননি। এটি এ দেশের রাজনীতিতে বিরল ঘটনা।

পংকজ ভট্টাচার্যের স্ত্রী রাখি দাস পুরকায়স্থ বলেন, বাকি জীবনটাও তার হাত ধরে মানুষের কল্যাণে কাজ করে যেতে চাই।

পংকজ ভট্টাচার্য তার জন্মদিন উদযাপন এবং তাকে শুভেচ্ছা জানানোয় সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, আমি আমৃত্যু এ দেশের অভাগা ও অত্যাচারিত মানুষের পাশে থাকব।

এর আগে মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্বালনের মাধ্যমে সংবর্ধনার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এরপর উদ্বোধনী নৃত্য ও গানের মাধ্যমে মূল অনুষ্ঠান শুরু হয়। অনুষ্ঠানে পংকজ ভট্টাচার্যকে উত্তরীয় পরিয়ে ফুল দেওয়ার মাধ্যমে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। এতে পংকজ ভট্টাচার্যের সম্মানে মানপত্র পাঠ করেন রামেন্দু মজুমদার। সেখানে তার জন্মদিন উপলক্ষে রবীন্দ্র ও নজরুলসঙ্গীত পরিবেশন এবং কবিতা আবৃত্তি করা হয়। এ ছাড়া বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতারা তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।